আমফান মোকাবিলায় বাংলার রেসিডেন্ট কমিশনারকে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকের চিঠি দেওয়া হলেও জানানো হল না মুখ্য়মন্ত্রী, মুখ্য়সচিব এমনকী নবান্নকেও। যা নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে প্রোটোকল ভাঙার অভিযোগ করলেন মুখ্য়মন্ত্রী মমতা বন্দ্য়োপাধ্যায়। 

টাকা চান অথচ হিসেব দেন না মুখ্য়মন্ত্রী, দিদিকে খোঁচা দিলীপের.

নবান্নে এ বিষয়ে মুখ্য়মন্ত্রী বলেন,আমফান মোকাবিলায় রাজ্য়ই সবকিছু করে আসছে। ইতিমধ্য়েই বিপর্যয় মোকাবিলা দল পাঠানো হয়েছে সমুদ্ধ তীরবর্তী জেলাগুলিতে। ২৪ ঘণ্টা হেল্পলাইন খুলেছে রাজ্য় সরকার। বাংলায় ধেয়ে আসছে দেখেও নবান্নকে জানানোর প্রয়োজন মনে করল না কেন্দ্রীয় সরকার। রেসিডেন্ট কমিশনারকে তারা ডাকতেই পারে। কিন্তু এত বড় একটা দুর্যোগ, যেখানে এখানেই আছড়ে পড়ার সম্ভাবনা সেখানে নবান্নকে জানানোর প্রয়োজন বোধ করল না। এটা অসৌজন্য়মূলক ব্যবহার। 

মমতার কথাতেই সিলমোহর,কন্টেনমেন্ট জোন ভাগের দায়িত্ব রাজ্য়কেই দিল কেন্দ্র.

সূত্রের খবর, এদিন বিকেল চারটেতে প্রধানমন্ত্রীর আমফান বৈঠক হওয়ার কথা ছিল। বৈঠকে উপস্থিত থাকার কথা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের। কিন্তু এদিনের এই গুরুত্বপূর্ণ বৈঠকে কেন্দ্রের তরফে চিঠি দিয়ে ডাকা হয়েছে রাজ্যের রেসিডেন্ট কমিশনারকে। এই বিষয়ে খোদ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কিংবা রাজ্যের কোনও আধিকারিককে কোনও তথ্য দেওয়া হয়নি বলে দাবি নবান্নের।

পাঞ্জা কষছে মাঞ্জা, শহরে চিনা ঘুড়ির সুতোয় প্রথম বলি স্কুটার চালক.

এর আগে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক আগেই সতর্ক করেছে আমফান সোমবার সন্ধ্যার মধ্যেই সুপার সাইক্লোনে পরিণত হবে। পশ্চিমবঙ্গ এবং বাংলাদেশের উপকূলগুলিতে বুধবার নাগাদ তা আছড়ে পরবে বলেও জানানো হয়েছে। সতর্ক করা হয়েছে ওড়িশাকেও।  আবহাওয়া দফতর জানিয়েছে, দক্ষিণ বঙ্গোপসাগরে ক্রমশ শক্তিশালী হয়েছে সাইক্লোন আমফান। পশ্চিমবঙ্গ এবং ওডিশার জন্য জারি হয়েছে বিশেষ সতর্কতা।