মোদী সরকারের ২০ লক্ষ কোটি টাকার আর্থিক প্যাকেজের সমালোচনা করায় এবার পাল্টা মুখ্য়মন্ত্রীকেই নিশানা করলেন বিজেপির  রাজ্য় সভাপতি। মমতাকে নিয়ে দিলীপ ঘোষ  বলেছেন, বার বার মুখ্যমন্ত্রী কেন্দ্রের থেকে টাকা চান। কিন্তু কেন্দ্রীয় সরকার হিসেবের কথা বললেই হিসেব দেন না। কেন্দ্রীয় প্রকল্পের অর্থ কোথায় কী খরচ হচ্ছে তা তো সরকারের জানার অধিকার আছে। 

মমতার কথাতেই সিলমোহর,কন্টেনমেন্ট জোন ভাগের দায়িত্ব রাজ্য়কেই দিল কেন্দ্র.

কদিন আগেই দেশের করোনা পরিস্থিতির মোকাবিলায় কেন্দ্রের ২০ লক্ষ কোটি টাকার প্যাকেজকে অশ্বডিম্ব বলেছিলেন রাজ্য়ের মুখ্যমন্ত্রী। বার বার মমতা বন্দ্য়োপাধ্যায়ের মুখে শোনা গিয়েছে এক কথা। করোনা পরিস্থিতির মোকাবিলায় কিছুই আর্থিক সাহায্য় দিচ্ছে না কেন্দ্রীয় সরকার। রবিবার যার পুরো হিসেব দেন অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমন। সংখ্যা দিয়ে অর্থমন্ত্রী দেখিয়েছেন,রাজ্য়গুলির জন্য় দরাজ হয়েছে মোদী সরকার। বরাদ্দ হয়েছে  ৪ লাখ ২৮ হাজার কোটি টাকা। কিন্তু রাজ্য়গুলিই সেই বরাদ্দ খরচ করতে পারছে না। 

পাঞ্জা কষছে মাঞ্জা, শহরে চিনা ঘুড়ির সুতোয় প্রথম বলি স্কুটার চালক.
 
এই প্রসঙ্গে দিলীপবাবু বলেন, কেন্দ্রীয় সরকার যে ধরনের আর্থিক প্যাকেজ দিয়েছে, আন্তরিক হলে রাজ্য়বাসীর কল্যাণে তা ব্যবহার করতে পারবে রাজ্য় সরকার। সময় এসেছে এবার তার দায়িত্ব পালন করুক রাজ্য। বিরোধীরা হাতে টাকা দেওয়ার কথা বলছে। তাতে সমস্যার সমাধান হবে না। কেন্দ্রের পরিকল্পনা সুদূর প্রসারী। ঠিক পথে এগোচ্ছে কেন্দ্র।

সুখবর, একই দিনেই মধ্য়েই ছুটি পেলেন রাজ্যের ৬৭ করোনামুক্ত রোগী.

এই বলেই অবশ্য থেমে থাকেননি মেদিনীপুরের সাংসদ। তিনি বলেন, কেন্দ্রীয় সরকার যা করোনা পরিস্থিতির মোকাবিলায় যা প্যকেজের কথা বলেছে, তার হিসেব দিয়েছে। কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী কোনও গালগল্প দেননি, তা হিসেবের মাধ্য়মে প্রমাণ দিয়েছেন তিনি।  কিন্তু রাজ্য় সরকার হিসেব চাইলেই  অন্যপথে হাঁটা দেয়।