করোনা উদ্বেগের মধ্য়েই সুখবর। করোনা নেঘেটিভ সদ্য়োজাত এবং মা। শুক্রবার বিকেলেই ডিসচার্জ দেয় মা ও শিশুকে সঞ্জিবনী হাসপাতাল। তবে শিশুটি এখনও তার বাবার মুখ দেখেনি। দেখেনি কাকার মুখও। আর কোনও দিনও দেখতে পাবে না দাদুকেও। 

আরও পড়ুন, মেয়ের দেহ আগলে একা বসে রইলেন অসহায় মা, প্রতিবেশীরা করোনা-আতঙ্কে দিলেন দরজা বন্ধ করে


সূত্রের খবর, সদ্য় পৃথিবীর আলো দেখা শিশুটির মা ছাড়া পরিবারের বাকিরা করোনা আক্রান্ত। হাওড়ার এই পরিবারে এই মুহূর্তে কেবল আলোকশিখা বলতে কেবল এই নতুন অতিথি। শিশুটির জন্ম হয় এপ্রিলের ২০ তারিখ। তার কয়েকদিন আগেই ১৩ তারিখ নাগাত তার বাবা করোনা আক্রান্ত হন। করোনাভাইরাসের সংক্রমণে ইতিমধ্য়ে প্রাণ হারিয়েছেন শিশুটির দাদু। এমন সময়ে বংশের দ্বীপ জ্বালাতে নবকুমারের আগমন। তবে আশা করা হয়েছিল সম্ভাব্য় ডেলিভারির ডেট মে মাসের ৭ তারিখে। তবে তার আগেই এল সুখবর।  

 

 

আরও পড়ুন, আরজি করের এমার্জেন্সি বিভাগের ১১ তলার উপর থেকে মরণঝাঁপ, ঘটনাস্থলেই মৃত্যু চিকিৎসকের

অপরদিকে, এই কঠিন পরিস্থিতিতে মা এবং সন্তান দুজনেরই রিপোর্ট করোনা নেগেটিভ আসায় খুশি সঞ্জিবনী হাসপাতাল। তাই একইসঙ্গে ছবি তুললেন চিকিৎসকরাও। শুক্রবার বিকেল ৪ টে নাগাত তারপর আনন্দের সঙ্গে ছুটি দেওয়া হয় হাসপাতাল থেকে।