পেঁয়াজের খোসার মতো একের পর এক রহস্য উন্মোচন হচ্ছে মুর্শিদাবাদের সাথে আন্তর্জাতিক জঙ্গি সংগঠনের যোগকে ঘিরে।আর সেই রহস্যের একবারে মূলে পৌঁছতে চাইছে জাতীয় তদন্তকারী সংস্থার কর্তারা। তাই মঙ্গলবার আবারও মুর্শিদাবাদে হানা দিলেন তারা। এবার সঙ্গে নিয়ে এলেন দিল্লির পাতিয়ালা কোর্ট থেকে রিমান্ডে পাওয়া মুর্শিদাবাদ থেকে ইতিপূর্বে গ্রেপ্তার হওয়া কুখ্যাত আন্তর্জাতিক ইসলামিক জঙ্গি সংগঠন আল-কায়েদার সদস্য ডোমকল বসন্তপুর কলেজের অস্থায়ী ইলেকট্রিশিয়ান নিউ লিয়ন আহমেদকে।  

অতিরঞ্জিত করে বলছে অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল,মুখ খুলল মোদী সরকার

সেইমতো এদিন লিওন আহমেদকে কড়া নিরাপত্তার মধ্যে বিএসএফ কর্তাদের উপস্থিতিতে  তার ডোমকলের পুরোনো বিডিও অফিস মোড় এর বাড়িতে একাধিক মিসিং লিঙ্ক এর খোঁজে তল্লাশি চালান জাতীয় তদন্তকারী সংস্থার প্রতিনিধিরা। এনআইএ  সদস্যরা পুনরায় এলাকায় প্রবেশ করতেই থমথমে হয়ে যায় গোটা বিডি অফিস চত্বর। লিওন কে নিয়েই তার বাড়ি আনাচে-কানাচে ফের একবার খুঁটিয়ে তল্লাশি করতে গিয়ে সেখান থেকে মেলে বেশকিছু ইলেকট্রনিক গেজেট। 

হাসিন জাহানকে ফোনে খুনের হুমকি,তদন্ত কতদূর জানতে চাইল হাইকোর্ট

যদিও এই নিয়ে ওই প্রতিনিধিদলটি কোনও প্রতিক্রিয়া দিতে চাইনি সংবাদ মাধ্যমে।এখানেই শেষ নয়, বেশ কিছুক্ষণ সময় লিওন আহমেদকে নিয়ে কাটানোর পরে জাতীয় তদন্তকারী সংস্থা বিএসএফ কর্তাদের সঙ্গে নিয়ে তার বাড়ি থেকে বেরিয়ে সটান গিয়ে হাজির হয় জলঙ্গিতে।জানা গিয়েছে, ইতিমধ্যেই ম্যারাথন জেলায়  জলঙ্গিতে তার একাধিক সোর্সের নাম জাতীয় সরকারি সংস্থার প্রতিনিধিদের জানিয়েছেন। সেই আন্তর্জাতিক জঙ্গি সংগঠনের স্লিপার সেলের  সদস্যদের খুঁজে পেতেই জলঙ্গি এলাকা থেকে শুরু হয় তল্লাশি।যদিও ঠিক কী ধরনের স্লিপার সেল-এর সদস্যদের খুঁজছেন তারা সে নিয়ে কোনো প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি জাতীয় তদন্তকারী সংস্থা থেকে শুরু করে বিএসএফ কর তাদের তরফ থেকে।

মোদীর মন্ত্রিসভায় রদবদল, বাংলা থেকে জায়গা পেতে পারেন তিন সাংসদ