আবারও দীর্ঘক্ষণ বাড়িতে পড়ে থাকল দেহ। এবার নন কোভিড দেহকে বাড়ি থেকে কেউ তুলতে চাইল না। কারণ বাড়ির বাদ বাকি সদস্যরা কোভিড আক্রান্ত।ঘটনাটি ঘটেছে, পাটুলি থানার রবীন্দ্রপল্লীতে।  এখানে পারুল বালা বলে এক ৪৩ বছরের মহিলা তার পরিবারের ৫ জন সদস্যদের নিয়ে থাকতেন। পরিবারের লোকেরা করোনা আক্রান্ত হলেও এই মহিলার করোনা হয়নি।

অর্জুন ঘনিষ্ঠ বিজেপি নেতার গাড়িতে বোমাবাজি, কোনও মতে প্রাণ বাঁচিয়ে রক্ষা

 আজ সকালে বার্ধক্যজনিত কারণে তার মৃত্যু হয়। মৃত্যুর পরে অনেক কষ্টে ডেথ সার্টিফিকেট জোগাড় করা গেলেও  সৎকার করার লোক পাওয়া যাচ্ছিল না। কারণ পরিবারের লোকেরা করোনা আক্রান্ত। শেষে পরিবারের লোকেরা সকালে ১০ টায় পাটুলি থানার শরণাপন্ন হয়। অনেক আত্মীয়ের সঙ্গে পুলিশ যোগাযোগ করলেও বাড়িতে করোনা রোগী থাকার জন্য কেউ সৎকার এর দায়িত্ব নিতে চায়নি।

সন্ত্রাসের বিষ ঢালাই ছিল কাজ, মুসলিম দুনিয়ায় অবাধ যোগ বাদুড়িয়ার 'জঙ্গি যুবতীর'

তারপর পুলিশ থেকে একটি সেচ্ছাসেবী সংগঠন হিন্দু সৎকার-এর সাথে যোগাযোগ করা হয়। কিন্তু তারাও করোনার কারণে এই বাড়িতে আসতে চাইনি। দীর্ঘক্ষণ কেটে যাওয়ার প্রায় 8 ঘণ্টা পর পুলিশ এক দূর সম্পর্কের আত্মীয় খোঁজ পায়। শেষমেশ তাকে তুলে নিয়ে এসে গরিয়াহাট শ্মশানে প্রায় আট থেকে নয় ঘণ্টা পরে পারুল বালা দেবীর সৎকার  সম্ভব হয়।