বেতন কাঠামোয় বৈষম্যের অভিযোগে প্রতিবাদে নামল প্রাথিমক শিক্ষকরা। বুধবার শিক্ষামন্ত্রীর নাকতলার বাড়িতে স্মারকপত্র জমা দেওয়ার কথা ছিল প্রতিবাদী শিক্ষকদের। কিন্তু পথেই তাঁদের মিছিল আটকাল পুলিশ। বাধ্য় হয়ে নিজেদের দাবি দাওয়া নিয়ে  যাদবপুরের পথে বসল প্রাথমিক শিক্ষক সংগঠনের সদস্যরা। 

গত বছর থেকে শুরু। প্রাথমিক শিক্ষকদের বেতন কাঠামোয় পরিবর্তন চেয়ে পেথে নেমেছিলেন প্রাথমিক শিক্ষকরা। সেবার আন্দোলনের পথে হাঁটলে পুলিসের লাঠিচার্জের মুখে পড়তে হয় শিক্ষকদের। যা থেকে অস্বস্তি বাড়ে রাজ্য সরকারের । পরে প্রাথমিক শিক্ষকদের দাবি দাওয়া নিয়ে আলোচনায় বসেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়।  ঠিক হয় পুজোর আগেই প্রাথমিক শিক্ষকদের দাবি মেনে বেতন কাঠামোয় পরিবর্তন আনা হবে। সেই অনুযায়ী গত জুলাই মাসে সার্কুলার  জারি হয়। যাতে প্রাথমিক শিক্ষকদের বেতন কাঠামোয় পরিবর্তন করে রাজ্য সরকার। 

বর্তমানে রাজ্য সরকারের এই বেতন কাঠামো নিয়ে ফের প্রতিবাদে নেমেছে উস্থি ইউনাইটেড প্রাইমারি টিচারস ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন। সংঘঠের অভিযোগ, দীর্ঘদিন ধরে শিক্ষা দফতরের থেকে যে বেতনা কাঠামোর আশ্বাস দেওয়া হয়েছিল তার বাস্তবায়ন ঘটেনি সার্কুলারে। এর জন্য একপ্রকার প্রতারিত বোধ করছে প্রাথমিক শিক্ষকরা। বেতন কাঠামোয় পরিবর্তনের পর দেখা গেছে, দীর্ঘদিনের প্রাথিমক শিক্ষকের গ্রেড পে ৩০০টাকা বেড়েছে।

যা ন্যূনতম ৮০০০টা হওয়ার কথা ছিল। রাজ্য সরকারের এই সিদ্ধান্ত নিয়েই অসন্তোষ সৃষ্টি হয়েছে প্রাথমিক শিক্ষকদের মধ্যে। এদিন তাই শিক্ষামন্ত্রীর কাছে বিষয়টি জানতে পথে নামেন প্রাথমিক শিক্ষকরা। কিন্তু যাদবপুর চার নম্বর গেট থেকে নাকতলার দিকে যাওয়ার পথেই আটকে দেওয়া হয় শিক্ষকদের। বাঘাযতীনে পুলিশ প্রাথমিক শিক্ষকদের পথ আটকালে রাস্তায় বসে পড়েন তাঁরা। প্রাথমিক শিক্ষকদের দাবি, বেতন কাঠামো নিয়ে সরকারের তরফ কোনও লিখিত আশ্বাস না পেলে পথ ছাড়বেন না তাঁরা।