গ্রাহকদের জমা অর্থ তোলায়  লাগাম পড়ানোয় এবার বিয়ে আটকে যাওয়ার পরিস্থিতি সৃষ্টি হল এক কন্য়ের। বিয়ের কেনাকাটা তো দূর, টাকা তুলতে এখন নিত্য়দিন লাইন দিতে  হচ্ছে মুম্বইয়ের পরিধি শর্মার (নাম পরিবর্তিত)। কন্য়ে নিজেই জানিয়েছেন, বাড়ির লোকের পাশাপাশি নিজের বিয়ের জন্য়  ভিড়ে ঠাসা লাইনে উঁকি দিতে হচ্ছে  তাঁকে।

কমেই চলেছে পেট্রোলের দাম, শীঘ্রই ছোঁবে ৭২ টাকা

ইয়েস ব্যাঙ্কের সংকট মোচনে এগিয়ে এসেছেন অর্থমন্ত্রী। রিজার্ভ ব্যাঙ্কের নীতি মেনে ব্যাঙ্কের অর্থ তোলায়  জারি করা হয়েছে বেশকিছু বিধিনিষেধ। নিয়ম অনুসারে এখন চাইলেই কেউ ৫০ হাজার টাকার বেশি তুলতে পারেবন না। তবে বিশেষ ক্ষেত্রে পাঁচ লাখ টাকা পর্যন্ত তোলার সুবিধা দেওয়া হয়েছে। আগামী ৩ এপ্রিল পর্যন্ত লাগু থাকবে এই নিয়ম। 

আশার আলো দেখাল স্টেট ব্যাঙ্ক, ইয়েস ব্যাঙ্কের ৪৯ শতাংশ 'শেয়ার' কিনছে এসবিআই

যদিও পরিধি জানিয়েছেন, বিয়ে ও শিক্ষা ক্ষেত্রে ৫ লক্ষ টাকা তোলার সুযোগ থাকলেও সেই সুযোগ থেকে বঞ্চিত  হচ্ছেন তিনি। ইয়েস ব্যাঙ্কের মুম্বই শাখায় ১১৬ লক্ষ টাকা রয়েছে তাঁর। বিয়ের ক্যাটারিং ও মণ্ডপ তৈরির জন্য অগ্রিম টাকা চেয়েছে ক্যাটারাররা। কিন্তু ব্যাঙ্কে টাকা  থাকা সত্ত্বেও তা তুলতে পারছেন না তিনি। কিন্তু ব্যাঙ্কের শাখায় বিশাল লাইন থাকার কারণ মাত্র ২০ হাজার টাকাই তুলতে পারছেন তিনি। 

করোনা ভাইরাস আতঙ্ক, মাস্কের কালোবাজারি রুখতে কড়া পদক্ষেপ পুলিশের

একই ঘটনা ঘটেছে কলেজ ছাত্র অভিষেকের ক্ষেত্রেও। সামনেই সেমেস্টারের টাকা জমা দিতে হবে তাকে। কিন্তু এটিএম থেকে টাকা তুলতে গেলে বার বার এরর দেখাচ্ছে। ফলে চিন্তা বেড়েছে তারও।  এদিকে নির্মলা সীতারমনের পথে হেঁটেই এবার ইয়েস ব্যাঙ্কে অংশিদারিত্ব নিতে চলেছে স্টেট ব্যাঙ্ক। রিজার্ভ ব্যাঙ্কের তরফে জানানো হয়েছে,আপাতত 'ড্রাফট কনস্ট্রাকশন স্কিম' অনুযায়ী ইয়েস ব্যাঙ্কের দায় নেবে স্টেট ব্যাঙ্ক। সেই অনুযায়ী ইয়েস ব্যাঙ্কের ৪৯ শতাংশ মালিকানা পেতে ২৫০০ কোটি টাকার ড্রাফট দেবে এসবিআই। মূলত, সমস্যায় পড় ব্যাঙ্ককে বাঁচাতেই  এই উদ্য়োাগ নিয়েছে এসবিআই।

এ বিষয়ে রিজার্ভ ব্যাঙ্কের গভর্নর শক্তিকান্ত দাস জানিয়েছেন, ৩০ দিনের মধ্য়ে চুক্তি স্বাক্ষরিত হওয়ার কথা থাকলেও আগামী ৯ মার্চের মধ্য়ে এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হবে। এ বিষয়ে কোনও সমস্যা হলে তা এই নির্ধারিত সময়ের মধ্য়ে রিজার্ভ ব্যাঙ্কের কাছে জানাতে বলা হয়েছে। সূত্রের খবর, প্রথম থেকেই ইয়েস ব্যাঙ্কের সঙ্গে এসবিআইকে জুড়ে দেওয়ার ঘোরতর বিরোধী রিজার্ভ ব্যাঙ্ক। এতে সরকারি কোষাগারে সমস্যার সৃষ্টি হতে পারে বলে আশঙ্কা করেছেন অর্থনীতিবিদরা। তাঁদের মতে, বার বার কোনও কোন বেসরকারি ব্যাঙ্ক বিপদে পড়লে তার দায়িত্ব  রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যঙ্ককে নিতে হবে। যার ফলে সরকারের অর্থভাণ্ডারে কুপ্রভাব পড়বে। 

এক্ষেত্রে তাই দুই ব্যাঙ্ককে মিলিয়ে না  দিয়ে তা অংশীদারিত্ব  কেনাকেই শ্রেয় বলে মনে করেছে রিজার্ভ ব্যাঙ্ক। মূলত, ইয়েস ব্যাঙ্কের বিপুল গ্রাহকদের কথা মাথায় রেখেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। কদিন আগেই ইয়েস ব্যাঙ্ক নিয়ে চিন্তা শুরু হয় আরবিআই-এর অন্দরে। রিজার্ভ ব্যাঙ্কের মোরটোরিয়াম নিয়ে চিন্তায় পড়ে যায় আন্তর্জাতিক রেটিং সংস্থা মুডিজ। ফলে সিএএ১ থেকে সরিয়ে ইয়েস ব্যাঙ্ককে বি২ রেটিং দেওয়া হয়।