Asianet News BanglaAsianet News Bangla

অব্যাহত জুনিয়র ডাক্তারদের আন্দোলন, আরজি করে অচলাবস্থা কাটাতে হাইকোর্টে দায়ের জনস্বার্থ মামলা

আরজি করে কর্মবিরতি শুরু হয়েছে চলতি বছরের অক্টোবরের শুরুর দিকেই। একাধিক দাবি নিয়ে কর্মবিরতি শুরু করে হাসপাতালের একদল জুনিয়র ডাক্তার। তাতে ব্যাহত হয় চিকিৎসা পরিষেবা। 

pil filed against rg kar hospital in calcutta high court regarding difficulties at hospital bmm
Author
Kolkata, First Published Oct 23, 2021, 7:06 PM IST
  • Facebook
  • Twitter
  • Whatsapp

জুনিয়র ডাক্তারদের (Junior doctor) কর্মবিরতির জেরে পরিষেবায় প্রভাব পড়ছে আরজি কর হাসপাতালে (RG Kar Medical College and Hospital)। তার জেরে সবথেকে বেশি সমস্যায় পড়েছেন সাধারণ মানুষ। পরিষেবা না পেয়ে ফিরে যেতে হচ্ছে রোগীর পরিবারের (patient family) সদস্যদের। আর এই অচলাবস্থা কাটাতে এবার হাইকোর্টের দ্বারস্থ হলেন নন্দলাল তিওয়ারি নামে এক আইনজীবী। এনিয়ে শনিবার কলকাতা হাইকোর্টে (Calcutta High Court) জনস্বার্থ মামলা দায়ের করেন তিনি। তাঁর আবেদন, দ্রুত জুনিয়র ডাক্তারদের অনশন তুলে চিকিৎসা পরিষেবা ফেরাতে উচ্চ আদালত হস্তক্ষেপ করুক। এদিকে এই সময় হাইকোর্টে পুজোর ছুটি (Puja Holiday) চলছে। ফলে শুধু গুরুত্বপূর্ণ মামলার জন্য অবকাশকালীন বেঞ্চ বসছে। সোমবার অবকাশকালীন বেঞ্চে মামলাটির উল্লেখ করবেন মামলাকারী আইনজীবী।

আরজি করে কর্মবিরতি শুরু হয়েছে চলতি বছরের অক্টোবরের শুরুর দিকেই। একাধিক দাবি নিয়ে কর্মবিরতি শুরু করে হাসপাতালের একদল জুনিয়র ডাক্তার। তাতে ব্যাহত হয় চিকিৎসা পরিষেবা। আন্দোলনকারীদের দাবি, অধ্যক্ষকে ইস্তফা দিতে হবে। যতদিন না পর্যন্ত তিনি ইস্তফা দেবেন ততদিন আন্দোলন চলবে। এদিকে পরিষেবা না পেয়ে সমস্যায় পড়ছেন রোগীর পরিবারের সদস্যরা। চিকিৎসা না পেয়ে ফিরে যেতে হচ্ছে তাঁদের।

আরও পড়ুন- 'আসবে নতুন ভোর', গোয়া সফর নিয়ে টুইট মমতার

আরও পড়ুন- মেলেনি আবাস যোজনার ঘর, ফিরহাদের সভায় যেতে বলায় নেতাদের তাড়া করলেন গ্রামবাসীরা

যতদিন যাচ্ছে ততই বিষয়টি ক্রমশ জটিল হয়ে উঠছে। সেই কারণে নড়েচড়ে বসেছে রাজ্য স্বাস্থ্যদফতর। আরজি করের জট কাটানোর জন্য স্বাস্থ্য দফতরের কর্তারা একটি ‘মেন্টর গ্রুপ’ (Mentor Group) তৈরি করে দেন। এই গ্রুপের সদস্যদের হাতেই আন্দোলনকারীদের সঙ্গে কথা বলার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল। সেই কথা বলে তাঁদের কাজে ফেরানোর দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। কিন্তু, একাধিকবার হাসপাতালের অধ্যক্ষ-সহ শীর্ষ কর্তা, মেন্টর গ্রুপের সদস্যরা আন্দোলনরত জুনিয়র চিকিৎসকদের সঙ্গে কথা বললেও কোনও সুরাহা মেলেনি। এরপর পরিস্থিতি আরও জটিল হয়ে যায়। তারপরই হাইকোর্টের দ্বারস্থ হয়ে জনস্বার্থ মামলা (PIL) দায়ের করেন নন্দলাল তিওয়ারি।

আরও পড়ুন- সরকারি প্রকল্প নিয়ে সচেতন করতে অভিনব উদ্যোগ, লোকশিল্পীদের দ্বারস্থ প্রশাসন

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার টালা ব্রিজের উপর মানববন্ধন গড়েছিলেন তাঁরা। আর শুক্রবার হাসপাতালের ট্রমাকেয়ার ভবনের সামনে সমাবেশ করে জনতার দ্বারস্থ হন তাঁরা। সন্ধ্যায় ট্রমাকেয়ার ভবনে ঢোকার র‍্যাম্পের উঁচু অংশে দাঁড়িয়ে খালি গলাতেই জনতার প্রতি বক্তব্য রাখেন তাঁরা। চত্বরে তখন রোগী-পরিজনের মাঝেই পোস্টার ও প্ল্যাকার্ড নিয়ে স্লোগান দেন সতীর্থরা।

Follow Us:
Download App:
  • android
  • ios