গোলি মারো স্লোগানের ঘটনায় এবার হাওড়া থেকে গ্রেফতার করা হল এক বিজেপি কর্মীকে। ভানু প্রতাপ সিং নামের লিলুয়ার বাসিন্দা ওই কর্মীকে বুধবার তার বাড়ির সামনে থেকে গ্রেফতার করে লিলুয়া থানার পুলিশ। এদিনই তাকে হাওড়া আদালতে পেশ করা হয়। 

বাড়ির ছাদ থেকে পড়ে ডান্সারের মৃত্যু, খুন না আত্মহত্যা তদন্তে পুলিশ

ভানু প্রতাপ সিংয়ের পরিবারের দাবি, এরকম কোনও স্লোগান দেওয়ার অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা। অমিত শাহের সভায় ভানু প্রতাপ লিলুয়া থেকে আসা মিছিলের নেতৃত্বে ছিলেন। পরিবারের পক্ষ থেকে প্রশ্ন তোলা হয় যে যদি এরকম স্লোগান দেওয়া হয়েই থাকে তাতে আপত্তি কোথায়? তাঁদের অভিযোগ, বিজেপি করলেই চক্রান্ত করে ফাঁসানো হচ্ছে। 

রক্তের হোলি খেলে বলছেন রঙ খেলবেন না, মোদীকে আক্রমণ তৃণমূলের

বিজেপি নেতৃত্বের অভিযোগ, সামনেই হাওড়ায় পুর নির্বাচন। তাই ভোটের আগে পুলিশ বিজেপি কর্মীদের বিভিন্নভাবে হেনস্থা করছে। রাজ্যের সমবায় মন্ত্রী তথা তৃণমূল কংগ্রেসের হাওড়া সদর জেলা সভাপতি অরূপ রায় জানান, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের জন্য এখানে শান্তি ফিরে এসেছে। যারা অশান্তি ছড়ানোর চেষ্টা করবে তাদের বিরুদ্ধে প্রশাসন ব্যবস্থা নেবে। সেদিনের ঘটনা ছাড়াও পুলিশ ভানু প্রতাপের বিরুদ্ধে অন্য আরও একটি জালিয়াতির মামলা রুজু করেছে। এদিন তাকে হাওড়া আদালতে তোলা হলে ভারপ্রাপ্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তাকে সাত দিনের জেল হেফাজতের নির্দেশ দেন।

নৈহাটিতে বিজেপি কর্মীকে বন্দুকের বাঁট দিয়ে মার, দায় ঝেড়ে তৃণমূল বললো 'ওদের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব'

রবিবার সিএএ-র সমর্থনে কলকাতায় সভা করতে আসেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। যেখানে দেখা যায়, সভাস্থলে যাওয়ার আগে বিজেপি কর্মীদের মুখে ওঠে অনুরাগ ঠাকুরের স্লোগান। প্রকাশ্যে 'দেশ কে গদ্দারো কো-গোলি মারো সালো কো' বলতে শোনা যায় বিজেপি কর্মীদের। সেই অভিযোগেই এই কর্মীদের গ্রেফতার করেছে পুলিশ। দিল্লি নির্বাচনের প্রচারপর্বে কেন্দ্রীয় অর্থ প্রতিমন্ত্রী অনুরাগ ঠাকুর প্রথম এই স্লোগান তুলেছিলেন। পরবর্তীকালে এই স্লোগান নিয়ে তীব্র বিতর্ক তৈরি হয়।