টেট উত্তীর্ণদের  অবিলম্বে নিয়োগের দাবিতে ছাত্র পরিষদের মিছিল। পুলিশের সঙ্গে ধস্তাধস্তিতে উত্তেজনা ছড়াল বিধান ভবন থেকে ডরিনা ক্রসিং অবধি। ধর্মতলা চত্বরে পুলিশ বাধা দিতে রণক্ষেত্রের আকার নেয়। বেশ কয়েকজন আহত হয়েছে বলে জানিয়েছে মিছিলে অংশগ্রহণকারী চাকরি প্রার্থীরা।

 

আরও পড়ুন, 'মৃত কর্মীর পরিবার চাকরি পেল না-অথচ ১১১ নতুন নিয়োগ হয় কী করে', উত্তাল আলিপুর চিড়িয়াখানা

 বৃহত্তর আন্দোলনের হুমকি 

প্রসঙ্গত, ঘটনার মোড় ঘোরে শুক্রবার। ওই দিন আপার প্রাইমারি ১৪৩৩৯ টি পদে নিয়োগের দাবিতে পথে নামে টেট উত্তীর্ণরা। তাঁদের উদ্দেশ্য ছিল বিকাশভবন অভিযান। কিন্তু বাঁদা পেতে তারা এসএসসি দফতরের সামনে অবস্থান বিক্ষোভে বসেন। উল্লেখ্য,বুধবার  উত্তরবঙ্গে ও দক্ষিণবঙ্গের প্রায় সবকটি জেলা থেকে প্রার্থীরা চাকরির দাবিতে বিকাশভবন অভিযানে সামিল হন সল্টলেকে। দ্রুত নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন না করলে বৃহত্তর আন্দোলনের হুমকি দেয় চাকরিপ্রার্থীরা।  বুধবার শিক্ষামন্ত্রীর কাছে স্মারকলিপি জমা দেয় তারা। চাকরিপ্রার্থীদের দাবি, বেশ কয়েকজন আন্দোলনকারীদের হেনস্থা করেছে পুলিশ।   

আরও পড়ুন, ডেরেকের ফোনে আন্দোলনরত কৃষকদের সঙ্গে কথা মুখ্যমন্ত্রীর, কেন্দ্রকে হুঁশিয়ারি মমতার

 

'পুলিশি হানা'র প্রতিবাদে মিছিল

অপরদিকে পুলিশের এই আচরণের প্রতিবাদে বিধানভবন থেকে ডোরিনা ক্রসিং পর্যন্ত মিছিলের আয়োজন করে ছাত্র পরিষদ। মিছিল ডোরিনা ক্রসিং পৌছতেই বাধা দেয় পুলিশ। সেইসময়  পুলিশের সঙ্গে ধস্তাধস্তিতে উত্তেজনা ছড়াল বিধান ভবন থেকে ডরিনা ক্রসিং অবধি। ধর্মতলা চত্বরে পুলিশ বাধা দিতে রণক্ষেত্রের আকার নেয়।বেশ কয়েকজন আহত হয়েছে বলে জানিয়েছে মিছিলে অংশগ্রহণকারী চাকরি প্রার্থীরা। দ্রুত নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন না করলে বৃহত্তর আন্দোলনের হুমকি দিয়েছে চাকরিপ্রার্থীরা।