করোনা রুখতে লকডাউন সফল করতে  রাজ্য় প্রশাসনের তরফে একাধিকবার সতর্ক করা হয়েছে। শহরের একাধিক জায়গায় কলকাতা পুলিশ অঞ্জন দত্তের বিখ্য়াত গানের সুরে সতর্কতা বাণী দিয়েছে। সোশ্য়াল মিডিয়ার প্ল্য়াটফর্মে সেগুলি ভাইরালও হয়েছে। এদিকে করোনা সঙ্কটে সেই স্বাস্থ্যবিধি নিয়ে বিন্দুমাত্র খেয়াল নেই কলকাতার রাজাবাজার এলাকার বাসিন্দাদের।

 

আরও পড়ুন, করোনা সঙ্কটে সাহায্য চেয়ে ফোন ১০০ ডায়ালেই, জানাল লালবাজার

 

 

প্রসঙ্গত করোনা রুখতে রাজ্য় জুড়ে চলছে দীর্ঘ লকডাউন। আর তারই মাঝে এবার শুরু হয়েছে পবিত্র রমজান মাস।  লালবাজার জানিয়েছে, সংক্রমণ রুখতে লকডাউনের জন্য শহরের একাধিক এলাকাকে ঘিরে রাখা হয়েছে। ওই এলাকাগুলিতে যাতায়াতেও  কড়াকড়ি করা হয়েছে। সেই সব এলাকায় বসবাসকারী মুসলিমদের রমজানের সময়ে ফল বা খাবার কিনতে যাতে কোনও সমস্যা না হয়, তা দেখার জন্য বলা হয়েছে থানাগুলিকে। কলকাতা পুলিশ এলাকার প্রতিটি থানার আধিকারিকদের কাছে পাঠানো বার্তায় কমিশনার বলেছেন, 'এই সময়ে খাবার কিনতে বাজারে যাবেন সাধারণ মানুষ। তাই বাজারগুলিতে পর্যাপ্ত সামাজিক দূরত্ব যাতে বজায় থাকে তা নিশ্চিত করতে হবে। একই সঙ্গে সকলে যাতে মাস্ক পরে বাজারে যান তাও দেখতে হবে।' এদিকে রাজাবাজার এলাকায় সেই নিয়ম ভাঙার দৃশ্য়ই ধরা পড়ল। 

 

আরও পড়ুন, কেন্দ্রের হিসেবে ৬৪৯, রাজ্য় বলছে বাংলায় করোনা আক্রান্ত ৪৬১

অপরদিকে এক পুলিশকর্তা জানিয়েছেন, বাজারে খাবার আনতে গেলেও মানুষ  যাতে অপ্রয়োজনীয় ভীড় সৃষ্টি না করেন, সেই বিষয়টিও দেখার জন্য কমিশনার থানার ওসিদের বলেছেন।  উল্লেখ্য়, সংক্রমণ রুখতে সতর্কতা হিসাবে শহরের বিভিন্ন সংখ্যালঘু এলাকার বাসিন্দাদের রমজানের সময়ে বাড়িতে থেকে প্রার্থনা করার আবেদন জানিয়েছেন মুসলিম ধর্মগুরুরাও। কিন্তু এত কিছু সত্ত্বেও রাজাবাজার চত্ত্বরে মানুষ করোনা পরিস্থিতিতেও সামাজিক দূরত্ব না মেনেই চলা ফেরা করছেন সাধারণ মানুষ। 

 

 

 

চিন থেকে সোজা কলকাতা বিমানবন্দরে, ১০ টন করোনা-চিকিৎসার সামগ্রী নিয়ে শহরে নামল উড়ান

স্ক্রিন ছুঁয়েই প্রিয় জনের অনুভূতি, করোনা রুখতে শহরের হাসপাতালে চালু 'ভারচুয়াল ভিজিটিং আওয়ার্স'

বাবুলের কথা এবার চিকিৎসক সংগঠনের মুখে,করোনায় মৃত্যু স্বাস্থ্য়কর্তার -স্বীকার করুক রাজ্য

এবার বেসরকারিতেও করোনা চিকিৎসায় মিলবে বিনামূল্য়ের পরিষেবা, হাসপাতালের খরচও দেবে রাজ্য সরকার