রাজ্য়ে লকডাউন শিথিল হওয়ার পর সোমবার থেকে অধিকাংশ পরিবহণ পরিষেবা চালু হয়েছে। তবে বাসের ক্ষেত্রে চূড়ান্ত ভোগান্তির শিকার হয়েছেন অফিস যাত্রীরা। এদিকে সোমবার অবধি চলেছে বেসরকারি বাসগুলির চালু হওয়া নিয়ে চলছিল জটিলতা। যার জেরে মঙ্গলবার যাত্রীদের সুবিধা দিতে পথে নেমছে বেশি সংখ্য়ায় সরকারি বাস। এদিকে যার জন্য় এত নিয়ম, সেই করোনাকেই বুড়ো আঙুল দেখিয়ে সোশ্য়াল ডিস্টান্সের বিন্দু মাত্র বালাই না করে অতিরিক্ত যাত্রী নিয়ে বাস বেরোল ঠাকুরপুকুর থেকে। এখানেই শেষ নয় এর ভিডিও করতে গেলে হয় সাংবাদিক নিগ্রহ।

আরও পড়ুন, বজ্রবিদ্যুৎ সহ টানা বৃষ্টিতে ভাসবে দক্ষিণবঙ্গ, ফের পারদ নেমে স্বস্তি ফিরল শহরে


বুধবার সাতসকালে, ঠাকুরপুকুর ৩এ বাস স্ট্যান্ডে যাত্রীদের লম্বা লাইন পড়ে। জানা গিয়েছে,  ৪৫ মিনিট ১ ঘন্টা দাঁড়িয়েও বাস পাওয়া যাচ্ছে না। এদিকে মুখ্য়মন্ত্রী নির্দেশ দিয়েছিলেন, বাসে যত সিট তত যাত্রীই নেওয়া যাবে। আর সুরক্ষাবিধিকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে বাড়তি যাত্রী নিয়ে বাস যাত্রা শুরু করে। একটি বাসে যতগুলি সিট তার চেয়ে বেশি যাত্রী তোলে স্টাটার। আর সেই ছবি করতে গেলে সাংবাদিককে নিগ্রহ করা হয় বলে অভিযোগ। এমনকি, বাসের ভিতর সিটের বেশি যাত্রী নেওয়া সেই ভিডিও করতে গেলে গায়ে হাত তোলে ওই স্ট্যান্ডের স্টাটার।  

 

 

আরও পড়ুন, 'আই কান্ট ব্রিদ' আন্দোলন পৌঁছল কলকাতায়, আমেরিকান সেন্টারের সামনে বিক্ষোভ ছাত্র-যুবদের

উল্লেখ্য়, মঙ্গলবার ৬০০ বাস রাস্তায় নামানো হয়েছে। পাশাপশি মঙ্গলবারই ১৫ টি রুটের বেসরকারি বাস ও মিনিবাস রাস্তায় নেমেছে। পরিবহণ দফতর সূত্রে খবর বুধবার বাসের সংখ্যা দ্বিগুণ করা হবে।  লকডাউন অধ্যায়ে কলকাতায় প্রায় ৫০ টি রুটে সরকারি বাস পরিষেবা চালু করা হয়। তার জন্যে  মোট ২৪০ টি সরকারি বাস চলাচল শুরু হয়। লকডাউন অধ্যায়ে যে সংখ্যক বাস চলেছে তাতে অসুবিধা হলেও বাস চলাচল করে যাত্রীদের গন্তব্যে পৌঁছে দিতে পারা গেছে। কিন্তু  ১ লা জুন থেকে ৭০% হাজিরা নিয়ে চলছে একাধিক সরকারি অফিস। এছাড়া হাতিবাগান, নিউ মাকেট সহ একাধিক বাজার খুলে গিয়েছে। বেসরকারি অফিস অবধি বেশ কয়েকটা খুলে গেছে। এই অবস্থায় চালু হয়নি লোকাল ট্রেনও। যার দরুন সাধারণ মানুষের যাতায়াতের প্রধান মাধ্যম বাস। তবে করোনা রুখতে স্বাস্থ্য়বিধিকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে নিয়ম লঙ্ঘন তো চলছেই। তারই সঙ্গে চূড়ান্ত অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটল বুধবার ঠাকুরপুকুরে।