এবার সল্টলেকে থাবা বসাল সোয়াইন ফ্লু।  রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যসচিব নারায়ণ কৃষ্ণমূর্তি এবার সোয়াইন ফ্লু আক্রান্ত হলেন। গত ১৩ তারিখ সল্টলেকের একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি হন রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্য সচিব নারায়ণ কৃষ্ণমূর্তি। এর পরেই চিকিৎসকরা রক্ত পরীক্ষা করে জানান তিনি  সোয়াইন ফ্লুতে আক্রান্ত হয়েছেন। এর পরই তাঁর অবস্থার অবনতি হলে তাকে আইসিসিউ-তে পাঠানো হয়। এই ঘটনায় নড়েচড়ে বসেছে রাজ্য প্রসশাসন। বেসরকারি হাসপাতালগুলিকে চিঠি দিয়ে সতর্ক করেছে বিধাননগর পুর নিগমের স্বাস্থ্য বিভাগ। 

বিধাননগর পুর নিগমের স্বাস্থ্য বিভাগের দাবি, বেসরকারি হাসপাতালগুলির পক্ষ থেকে জানানো হচ্ছে না জ্বরে আক্রান্ত ব্যক্তিদের তথ্য। আজ বিধাননগর পুর নিগমের মেয়র পরিষদ সদস্য (স্বাস্থ্য) প্রণয় রায় জানান চিঠি পাঠানো হচ্ছে প্রতিটা বেসরকারি হাসপাতালে।

চিকিৎসকেরা বলছেন সোয়াইন ফ্লু একটি এয়ার বোন ডিজিজ। অর্থাৎ শ্বাস প্রশ্বাসের মধ্য়ে দিয়ে সোয়াইন ফ্লু ছড়িয়ে পড়ে। চিকিৎসকরা এই রোগের প্রকোপ এড়াতে এন৯৫ মাস্ক ব্যবহার করতে পরামর্শ দিচ্ছেন। 

প্রসঙ্গত সোয়াইন ফ্লু জ্বরে আক্রন্ত হয়েছেন একটি সরকারি বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা ইলোরা চৌধুরীও। তাঁকেও ভর্তি করা হয়েছে সল্টলেকের একটি বেসরকারি হাসপাতালে। গতকাল একজন ৭১ বছর বয়েসি বৃদ্ধ মারা যান সোয়াইন ফ্লুতে আক্রান্ত হয়েই। প্রশাসনিক তৎপরতা আর ব্যক্তি সচেতনতা না বাড়ালে আশু বিপদ। 
প্রসঙ্গত গত বছরেই মহামারির আকার ধারণ করেছিল সোয়াইন ফ্লু। প্রায় হাজার মানুষের মৃ্ত্যু হয় এই রোগে। এই বছরের গুরজাট, হরিয়ানা, দিল্লিতে ছড়াতে থাকে এই ভাইরাস। বর্তমান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ-ও আক্রান্ত হয়েছিলেন। তবে পশ্চিমবঙ্গ বিপন্মুক্তই ছিল। কিন্তু গত এক সপ্তাহে বিপদ কয়েকগুণ বেড়ে গেল।