লকডাউনেও জারি রইল তৃণমূলের গোষ্ঠী সংঘর্ষ। করোনা মোকাবিলায়  ত্রাণ বিলিকে কেন্দ্র করে চলল গুলি, বোমা। রবিবারের করোনা আতঙ্কের থেকেও গার্ডেনরিচে বড় হয়ে উঠল তৃণমূলের গোষ্ঠী লড়াই।

রাজ্য়ে ২২টি করোনা হাসপাতাল, সংক্রমিত বাড়ছে দেখেই সিদ্ধান্ত স্বাস্থ্য় ভবনের

দুঃস্থদের ত্রাণ দেওয়াকে কেন্দ্র করে গতকাল রাতে উত্তাল হয়ে ওঠে গার্ডেনরিচ এলাকা। এলাকাবাসীদের দাবি, ১৩৫ ও ১৩৪ নম্বর ওয়ার্ডে ত্রাণ বিলি চলছিল সকাল থেকেই। ১৩৫ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আখতারি শাহজাদা তাঁর ওয়ার্ডে ত্রাণ বিলি করে চলে যান। উল্টোদিকে ১৩৪ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর শামস ইকবাল এর বোন সাবা ইকবাল ১৩৪ নম্বর ওয়ার্ডে লকডাউনে সমস্যায় জর্জরিতদের ত্রাণ বিলি করেন।

নিউ আলিপুরে একই ব্লকে ১৫ করোনা আক্রান্ত, গুজব রটিয়ে গ্রেফতার মহিলা.

অভিযোগ, সাবা ইকবালের ত্রাণ বিলি ভালো চোখে নেয়নি আখতারি শাহজাদার লোকজন। উল্টে আসন্ন পুরসভা নির্বাচনে সাবা ইকবাল এলাকায় নির্দল প্রার্থী হয়ে ভোটে দাঁড়াবেন বলে খবর। এই খবর প্রকাশ্য়ে আসতেই দুই পক্ষের মধ্য় বিবাদ শুরু হয়েছে। অতীতে বেশ কয়েকবার এ নিয়ে বচসা হয়। গতকাল ত্রাণ বিলিকে কেন্দ্র করে সেই বচসা উত্তার রূপ নেয়। 

ভবানীপুরের বহুতলে বিধ্বংসী আগুন,দম বন্ধ হয়ে বহু লোকের আটকে পড়ার আশঙ্কা.

এলাকাবাসীরা দাবি করেছেন, প্রথমে ইট ,পাথর এমনকী বোতল বৃষ্টি শুরু হয় এলাকায়। পরে গুলির সঙ্গে সঙ্গে চলে বোমাবাজি। তৃণমূলের দুই গোষ্ঠীর সংঘর্ষে উত্তাল রূপ নেয় গার্ডেনরিচ এলাকা। রাত বারোটার পর থেকে বন্দুক নিয়ে রাস্তায় ঘোরাফেরা করে দুষ্কৃতীরা।। ঘটনায় এখনও পর্যন্ত সাত জনকে অ্যারেস্ট করেছে গার্ডেনরিচ থানার পুলিশ ।দুপক্ষের হামলায় বেশ কয়েকজন আহত হয়েছে বলে খবর। ইতিমধ্য়েই গার্ডেনরিচের সেই ভিডিয়ো ভাইরাল হয়েছে। তবে ভিডিয়োর সত্য়তা যাচাই করেনি এশিয়ানেট নিউজ বাংলা।