ফের রাজ্য়ে করোনার গ্রাসে আরও দুই। এবার সংক্রমণের শিকার একই পরিবারের দুই মহিলা। সূত্রের খবর, নয়াবাদের করোনা আক্রান্তের সংস্পর্শে এসেই আক্রান্ত হয়েছেন ওই দুই মহিলা।  এদের মধ্য়ে একজন ৭৬ বছরের বৃদ্ধা। অন্যজন ৫৬ বছরের প্রৌঢ়া।

মমতার ডাকে সাড়া,করোনা রুখতে প্রচারে নোবেলজয়ীরা

মনে করা হচ্ছে, রাজ্যের দশম করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত অর্থাৎ নয়াবাদের ব্যক্তি এগরার বিয়ে বাড়িতে গিয়েছিলেন। সেখানে এনারাও ছিলেন বলে মনে করা হচ্ছে। সেখান থেকেই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে বলে অনুমান করা হচ্ছে। যদিও এখনও পর্যন্ত ঠিক পরিষ্কার হচ্ছে না। সবকিছু খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানা যাচ্ছে।

লকডাউনে রাস্তায় কেন দিদি, 'ভাইরা কী শিখবেন' প্রশ্ন দিলীপের.

আগে দুজনেই হাসপাতালের কোয়ারেনটাইনে ছিলেন বলে জানা যাচ্ছে। এই দুই মহিলাই দিঘার বাসিন্দা। মনে করা হচ্ছে, দুজনেই করোনা সংক্রান্ত রোগীর সংস্পর্শে এসেছিলেন। তবে বিদেশ যাত্রার কোনও ইতিহাস তাঁদের নেই। এই মুহূর্তে দুজনেরই চিকিৎসা চলছে বেলেঘাটা আইডিতে। নতুন করে দুজনের আক্রান্ত হওয়ার খবরে তীব্র আতঙ্ক তৈরি হয়েছে।

বাংলার করোনায় দিল্লির গাফিলতি,তেহট্টের আক্রান্ত নিয়ে তথ্য় দেয়নি কেন্দ্র..

এ দিন করোনা আক্রান্ত সন্দেহে চিকিৎসাধীন মোট ৩৭ জনের লালারস পরীক্ষার রিপোর্ট রাজ্য প্রশাসনের হাতে এসেছে। এর মধ্যে দুই মহিলার রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে। 
এদিকে জানা গিয়েছে, করোনায় আক্রান্ত নয়াবাদের বৃদ্ধের সামান্য উন্নতি হয়েছে। তাঁর শরীরের গ্রাফ নীচের দিকে আজ আর নামেনি। নতুন করে ভেন্টিলেশনে অতিরিক্ত ব্য়বস্থা করতে হয়নি। গত কয়েকদিন ধরে বাইপাশের ধারে একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা চলছে ওই বৃদ্ধের। এই মূহুর্তে ভেন্টিলেশনেই রয়েছেন ওই বৃদ্ধ। ডাক্তার জানিয়েছেন নতুন করে করোনার এফডিএ অনুমতিপ্রাপ্ত ওষুধ প্রয়োগ করেছেন তারা। যাতে ফল পাওয়া গিয়েছে।