রাত পেরোলেই ভ্যালেনটাইন ডে। বাজারে গোলাপের বাহার। শহরের হোটেল-রেস্তরাও উঠেছে সেজে। ঘুরতে যাওয়া এবং খাওয়া-দাওয়া দুই চাই। এই মুহূর্তে শহরের কোলাহল থেকে একটু দূরে নদীর বুকে জলের বয়ে যাওয়া শব্দে আর ভেসে আসা হাওয়ায় মুখ ডোবাতে ইচ্ছে হয় তাহলে ঘুরে আসতে পারেন চন্দননগর এবং শ্রীরামপুর।

 আরও পড়ুন, চড়তে হবে না ট্রেন, হুশ করে হারিয়ে যেতে ঘুরে আসুন কলকাতার এই ঠিকানায় 

 

এবারের ভ্য়ালেনটাইনকে রঙিন করতে সাতসকালেই বেরিয়ে পড়ুন ইউরোপিয়ান সেটেলমেন্টস বোর্ড রাইডে অর্থাৎ নৌকা বিহারে। প্রসঙ্গত ফরাসি উপনিবেশের ছোঁয়া এখনও চন্দন নগরের কোনায় কোনায়। শ্রীরামপুরে আবার ডাচ সংষ্কৃতির সন্ধান পাবেন। ড্যানিশ কালচারাল ইন্সিটিউট এবং অক্সফোর্ড বুক স্টোরের সঙ্গে যৌথবাবে বিশেষ এই নৌকাবিহারের আয়োজন করেছে ওয়েস্ট বেঙ্গল কর্পোরেশন। ভ্য়ালেনটাইন ডে-র দিনেই এই নৌকা বিহারের শুভ সূচনা হচ্ছে। 

 

আরও পড়ুন, আজই বেরিয়ে পড়ুন, মন ভাল করে ফিরুন, রইল কলকাতার সেরা রেস্তোরার হদিশ  

 

১৪ ফেব্রুয়ারি থেকে প্রতি শনিবার এবং রবিবার এই নৌকাবিহার হবে। সকাল ন-টার সময় বোট ছাড়বে মিলেনিয়াম পার্ক জেটি থেকে। সেখানেই ফিরে আসবে আসবে রাত ৯টায়। ১১ ঘন্টার সফরে বোটটি শুধু দাঁড়াবে চন্দননগর এবং শ্রীরামপুর। এই দুই জায়গায় দেড় ঘন্টা করে দাঁড়াবে বোটটি। গোটা সফরের জন্য খরচ হবে মাত্র সাড়ে তিনশো টাকা। মিলবে ফ্রি ওয়াই ফাইও। বোটের মধ্য়েই থাকছে, ক্যাফে, সেলফি বুথ এবং আস্ত একটি লাইব্রেরি। থাকছে ওপেন ডেস্কও। চাইলে ইউরোপিয়ানের ইতিহাসের সিনেমাও দেখতে পারেন। তবে এমনটা হতেই পারে প্রাণের মানুষ ছেড়ে চলে গিয়েছে। কেই বা বলতে পারে এই ১১ ঘন্টার সফর আপনার জীবন বদলে দেবে। তাহলে আর দেরি না করে ঘুরে আসুন, মন হালকা করে আসুন।