রাজ্য়ে বেড়েই চলেছে করোনা সংক্রমণ। বুধবার বিকেল পর্যন্ত বাংলায় করোনা সংক্রমিতের সংখ্য়া বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩০০। যদিও খুশির খবর, ইতিমধ্য়েই করোনা মুক্ত হয়েছেন ৭৯ জন। মৃতের সংখ্য়া বেড়ে দাড়িয়েছে ১৫। বুধবার নবান্নে সাংবাদিকদের এমনই জানিয়েছেন মুখ্য়সচিব রাজীব সিনহা। 

গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে নতুন করে আরও ৩৬ জনের শরীরে মারণ করোনার সংক্রমণ ধরা পড়েছে। এখনও পর্যন্ত বাংলায় ৭০৩৭টি করোনা পরীক্ষা হয়েছে। চিকিৎসকদের প্রচেষ্টায় এখনও পর্যন্ত রাজ্যে ৭৯ জন করোনামুক্ত হয়েছেন। গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে ৮৫৫ করোনা পরীক্ষা হয়েছে। নবান্নে সাংবাদিক বৈঠকে এই তথ্য জানিয়েছেন মুখ্যসচিব।

বাঙ্গুর হাসপাতালের 'বেহাল দশা' প্রকাশ্য়ে, ভিডিয়োর সত্যতা জানতে চেয়ে রাজ্য়কে চাপ বাবুলের.

অন্যদিকে, রাজ্য়ের এই হিসেবের সঙ্গে মিলছে না কেন্দ্রের সংখ্য়া। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য় মন্ত্রকের বুলেটিন বলছে, রাজ্য়ে এখনও পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত ৪২৩ জন। তবে মৃত এবং করোনা মুক্তের সংখ্যা মিলে গিয়েছে রাজ্য়ের সঙ্গে। এখনও রেড জোনে কলকাতা, হাওড়া, উত্তর ২৪ পরগনা, পূর্ব মেদিনীপুরের নাম রয়েছে। তবে ৯টি জেলায় কোনও সংক্রমণ পাওয়া যায়নি। 

ছড়াতে পারে সংক্রমণ, কোভিড হাসপাতালে মোবাইল নিষিদ্ধ করল নবান্ন.

এদিন নবান্নে মুখ্য়মন্ত্রী দাবি করেন, রাজ্য়ে কম করোনা পরীক্ষার যে বদনাম দেওয়া হচ্ছে তা ঠিক নয়। করোনা মোকাবিলায় ইতিবাচক কাজ করছেন রাজ্য়ের চিকিৎসকরা। জাতীয় কিছু সংবাদ মাধ্য়মে টেস্ট নিয়ে রাজ্য়ের ভাবমূর্তি নষ্ট করার চেষ্টা চলছে। ইতিবাচক পরিস্থিতি তৈরি হওয়া সত্ত্বেও ইচ্ছাকৃত ভাবে বদনাম করা হচ্ছে বাংলাকে।

চিকিৎসকদের পর এবার চারজন নার্স, কলকাতা মেডিক্যালে করোনা আতঙ্ক জারি

এই বলেি থেমে থাকেননি মুখ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, হঠাৎ করে কেন্দ্রের টিমকে পরিদর্শনে পাঠানো হল। বাংলার মানুষ কী খাচ্ছে, স্নান করেছে কিনা দেখার জন্য।  কেন্দ্রের ত্রুটিপূর্ণ  টেস্ট কিটের কারণেই কম টেস্ট রিপোর্ট এসেছে বলে মন্তব্য় করেন মুখ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, আরও কিট পেলে আরও টেস্ট হতো।