গত বছর সুইডেনের বিজ্ঞানীরা সাইবেরিয়ায় বরফে জমা এক কুকুর ছানার দেহ উদ্ধার করেন। এক বছর গবেষণার শেষে দাবি করা হয়েছে যে এটি ১৮ হাজার বছর পুরানো দেহ। বরফের চাপা থাকার কারণে শরীরে কোনও পচন ধরেনি। এমনকী কুকুরছানার শরীরের পশমও দেখা গেছে এবং  তার চোয়ালও পুরোপুরি সুরক্ষিত ছিল। বরফে নীচে দেহটি থাকার ফলে দেহটি অক্ষুন্ন রয়েছে।

আরও পড়ুন- তবে কি পৃথিবীর ধ্বংসের সূচণা, আলোকবর্ষে বিশ্বের বৃহত্তম বিস্ফোরণ জানালেন বিজ্ঞানীরা

আরও পড়ুন- শূণ্যপদ সাইবার ক্রাইম কনসালটেন্টে, আবেদন জমা দেওয়ার শেষ তারিখ ৬ মার্চ

এই কুকুর ছানার দেহটি আবিষ্কার করেছিলেন বিজ্ঞানীরা লাভ ডেলাইন এবং ডেভ স্টান্টন। স্থানীয় সংবাদমাধ্যমে তাঁরা জানিয়েছেন, "কুকুরের মৃতদেহ দেখে আমরা হতবাক হয়ে গিয়েছিলাম। এটি কুকুর ও নেকড়ের মিশ্র প্রজাতির মতো। এর নামকরণ করা হয়েছিল ডগার। তবে বিজ্ঞানীরা বলেছেন যে এর শারীরবৃত্তীয় কাঠামোটি নেকড়ের মতো। এখন আরও গবেষণার প্রয়োজন।" 

আরও পড়ুন- অধিবর্ষ বা লিপ ইয়ার অত্যন্ত বিরল দিন, রইল এই দিন সম্বন্ধে ১০ বিশেষ উক্তি

তবে একদল গবেষক মনে করছেন এটি বিলুপ্তপ্রায় নেকড়ের প্রজাতিও হতে পারে। বৈজ্ঞানিক স্টান্টনের মতে গবেষণায় উঠে এসেছে, এটি একটি বিরল প্রজাতির একটি নেকড়ে। যা পরবর্তীকালে বিলুপ্ত হতে হতে কুকুর শ্রেনীর অন্তর্ভুক্ত হয়ে যায়। বন্য প্রানী থেকে গৃহপালিত হয় ওঠে।