দেশজুড়ে করোনা আতঙ্কের মধ্যে লকডাউনের ব্যবস্থা নিয়েছে সরকার। সারা বিশ্বে এই লকডাউন চলাকালীন সকলেই ঘরবন্দি।  একটানা  দীর্ঘদিনের লকডাউনে প্রত্যেকেই নিজেদের মতোন করে সময় কাটাচ্ছেন। কিন্তু এতদিন ঘরবন্দি থাকতে গিয়ে অনেকের সম্পর্কের মধ্যে একঘেয়েমি চলে এসেছে। এছাড়া দীর্ঘদিন ধরে ঘরবন্দি থাকতে থাকতে আসছে মানসিক হতাশা, ক্লান্তি। যার থেকে ক্রমশ বাড়ছে গার্হস্থ্য হিংসা। এর আগে এতদিন পরিবারের সঙ্গে সময় কাটাতে এর আগে কেউই অভ্যস্ত ছিল না। যার ফলেই সমস্যা আরও প্রকট হচ্ছে।

আরও পড়ুন-কীভাবে সুরক্ষিত রাখবেন আপনার টাকা, কোটি কোটি গ্রাহককে সুরক্ষা কবচ দিল 'এসবিআই'...

সম্পর্কের একঘেয়েমি থেকেই মুক্তির স্বাদ খুঁজছে অনেকেই। ব্যক্তিগত সম্পর্কের বাইরে অনেকেই ঝুঁকছেন পরকীয়ায়।  যত দিন যাচ্ছে ডেটিং অ্যাপে ঝুঁকছে ভারতীয়দের একাংশ। সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে, মাত্র কয়েক মাসের মধ্যেই গোটা ভারতে  ১০ লক্ষ ইউজার আরও বেড়ে গিয়েছে এক্সট্রা ম্যারিটাল ডেটিং অ্যাপ গ্লেডেনে। লকডাউন শুরুর থেকে এপ্রিলের মধ্যেই ১৬৬ শতাংশ নতুন ব্যবহারকারী যোগ দিয়েছেন এই অ্যাপে। তবে সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে এক চমকপ্রদ তথ্য। যেখানে দেখা গিয়েছে অ্যাপ  ব্যবহারকারীর বেশিরভাগই মহিলা। পরিস্থিতি যেদিকে এগোচ্ছে তাতে দেখা যাচ্ছে এরকম চলতে থাকলে আর কিছুদিনের মধ্যেই ইউরোপকে টেক্কা দেবে ভারত ।

আরও পড়ুন-লকডাউনের বাম্পার অফার, এই প্ল্যানে দ্বিগুন হাইস্পিড ডেটা দিচ্ছে জিও...

সমীক্ষায় আরও দেখা গেছে, ডেটিং অ্যাপে মহিলাদের বেশিরভাগই  মুম্বই, কলকাতা, দিল্লির,  বেঙ্গালুরু,পুনে, হায়দরাবাদের বাসিন্দা। শুধু তাই নয়, তাদের মধ্যে প্রত্যেকেই উচ্চশিক্ষিত এবং অনেকেই ভাল পদে কর্মরত। সেই সমস্ত মহিরালা যারা বেশিরভাগ সময়টাই এই ডেটিং অ্যাপ সময় কাটান, তাদের যাতে কোনওরকম সমস্যায় পড়তে না হয় সেদিকে সর্বক্ষণ নজর রাখছে এই সংস্থা। সমীক্ষায় আরও দেখা গেছে, যারা ওয়ার্ক ফ্রম হোম করছেন দিনের শেষে ক্লান্তি দূর করতে এই সমস্ত অ্যাপকেই বেছে নিচ্ছেন। সম্পর্ক টিকিয়ে রাখতে সেক্স অথবা সেক্সচুয়াল চ্যাটের ভীষণই প্রয়োজন রয়েছে। যার ফলে বেশিরভাগই এই ভার্চুয়াল সম্পর্কেই নিজেদের তৃপ্তি খুঁজে পাচ্ছেন।