হিরো মোটোকর্প উন্মোচিত করল নতুন এক্সট্রিম ১৬০আর মডেলের চেহারা।  এটি এই সংস্থার প্রথম ১৬০সিসি মোটর সাইকেল  এবং এক্সট্রিম পরিবারের তৃতীয় মডেল। এর আগে লঞ্চ হয়েছিল এক্সট্রিম ২০০ আর এবং ২০০এস। 
এছাড়া এই সংস্থার নতুন যে দুটি বাইক লঞ্চ হল ভারতে সেগুলো হল প্যাশন প্রো বিএস৬ ও নতুন গ্ল্যামার বিএস৬।  হিরো মোটোকর্প এছাড়াও নিয়ে এল এক্সপালস ২০০ র‍্যালি কিট যা পরের মাস থেকে নির্দিষ্ট ডিলারশিপ থেকে পাওয়া যাবে।
নতুন এক্সট্রিম ১৬০ আর সমৃদ্ধ হয়েছে একটি বিএস৬-নিয়মসিদ্ধ, এয়ার-কুলড, ১৬০সিসি, ইলেকট্রনিক ফুয়েল ইঞ্জেকশন ইঞ্জিন দ্বারা। এই ইঞ্জিন উৎপন্ন করে ১৫বিএইচপি এবং ৫ স্পিড কনস্ট্যান্ট জাল বুনানির দ্বারা নির্মিত গিয়ারবক্স। এই বাইকটি ৪.৭ সেকেন্ডে ০-৬০ কি.মিপিএইচ প্রদান করে।  নতুন প্যাশন প্রো বাইকে আছে বিএস৬ স্বীকৃত ইঞ্জিন, ১১০সিসি, এক্সএসএন্স প্রোগ্রামড ফুয়েল ইঞ্জেকশন মিল রয়েছে যা উৎপন্ন করে ৯.০২ বিএইচপি এবং ৯.৭ এনএম টর্ক।  নতুন গ্ল্যামার মডেলটি আর একটি নতন সংযোজন এই  মোটরসাইকেল নির্মাণ সংস্থার। গ্ল্যামারেও আছে বিএস৬ স্বীকৃত ইঞ্জিন, ১২৫ সিসি  এক্সএসএন্স প্রোগ্রামড ফুয়েল ইঞ্জেকশন মোটর যা থেকে ১০.৭৩বিএইচপি এবং ১০.৬ এনএম টর্ক উৎপাদন করে।  প্যাশন প্রো বিএস৬ এবং গ্ল্যামার বিএস ৬ উভয় মডেলেই অটো সেল টেকনোলজি এবং আই৩এস (আইডল স্টার্ট সিস্টেম) থাকছে।

এই তিনটি মোটরসাইকেলেই রয়েছে ডায়ামন্ড ফ্রেম। এক্সট্রিম ১৬০ আর মডেলে রয়েছে ৩৭এমএম টেলিসকোপিক ফ্রন্ট ফর্কস এবং পিছনদিকে রয়েছে ৭টি স্টেপ সমেত সুবিধেমতো ঠিক করে নেওয়া যায় এমন মোনোশক।  এই মোটরসাইকেলে ১৭ইঞ্চি হুইল সঙ্গে ২৭৬এমএম ফ্রন্ট ও রিয়ার পেটাল ডিস্ক ব্রেকস।  উভয় প্যাশন প্রো বিএস৬ এবং গ্ল্যামার বিএস৬ -এ থাকছে ফ্রন্ট ও রিয়ার সাস্পেন্সন ট্রাভেলস। এছাড়া অনেকখানি প্রয়োজনীয় গ্রাউন্ড ক্লিয়ারেন্স।  দুটি বাইকেই আছে ফ্রন্ট ডিস্ক ব্রেক।

এক্সট্রিম ১৬০আর -এ রয়েছে এলইডি হেডল্যাম্প, এলইডি টেলল্যাম্প, এলইডি টার্ন ইন্ডিকেটর, হ্যাজার্ড লাইট সুইচ, ইনভার্টেড ডিজিটাল ডিসপ্লে এবং সেগমেন্ট-ফার্স্ট সাইডস্ট্যান্ড ইঞ্জিন কাট অফ। 
২০২০ প্যাশন প্রো মডেলে থাকছে  নতুন হেডল্যাম্প, সিগনেচার টেলল্যাম্প, ট্রিপল-টোন গ্রাফিকস এবং ডিজি-অ্যানালগ ক্লাস্টার সঙ্গে রিয়েল টাইম মাইলেজ ইন্ডিকেটর। 
সদ্য লঞ্চ হওয়া গ্ল্যামার মডেলটিতেও আছে নতুন হেডল্যাম্প, এলইডিটেললাইটস এবং অ্যালয় হুইলস। 

রঙের বৈচিত্রও উল্লেখ করার মতোই-  এক্সট্রিম ১৬০ আর পাওয়া যাবে গ্রে, স্পোর্টস রেডের সঙ্গে ধূসর রঙ বা গ্রে রঙের  কম্বিনেশনে। প্যাশন প্রো পাওয়া যাবে স্পোর্টস রেড, টেকনো ব্লু, মুন ইয়েলো এবং গেজ ব্ল্যাক কালারে। গ্ল্যামার-এর রঙেও বসন্তের ছোঁয়া- স্পোর্টস রেড, টেকনো ব্লু, টর্ণেডো গ্রে এবং ক্যান্ডি রেড বিকল্পে বেছে নেওয়া যাবে পছন্দসই মডেলটি।

সবকটি বাইকই পাওয়া যাবে দুটি বিকল্পে- এক্সট্রিমে ১৬০ আর মডেলে থাকবে সামনের ডিস্ক সিঙ্গল চ্যানেল  এবিএস এবং ডাবল ডিস্ক (সামনে ও পিছনে), সঙ্গে সিঙ্গল চ্যানেল এবিএস। প্যাসন প্রো বিএস৬ ও গ্ল্যামার বিএস৬ -এর ক্ষেত্রে সেলফ ড্রাম অ্যালয় এবং সেলফ ডিস্ক অ্যালয় ট্রিমস।

হিরো মোটোকর্প এখনও এক্সট্রিম ১৬০ আর মডেলের দাম ঘোষণা করেনি। বাকি দুটি মডেলের প্রকার ও দাম নীচে রইল-

হিরো প্যাশন প্রো বিএস ৬ ( সেলফ ড্রাম অ্যালয়)- ৬৪,৯৯০ টাকা

হিরো প্যাশন প্রো বিএস ৬ ( সেলফ ডিস্ক অ্যালয়)-৬৭,১৯০ টাকা

হিরো গ্ল্যামার বিএস৬ (সেলফ ড্রাম অ্যালয়)-৬৮,৯০০ টাকা

হিরো গ্ল্যামার বিএস৬ (সেলফ ডিস্ক অ্যালয়)-৭২,৪০০ টাকা