যত দিন যাচ্ছে ততই যেন অগ্নিমূল্য হচ্ছে পেঁয়াজের দাম।  হেশেলে যেন পেঁয়াজের ঝাঁঝে চোখে জল আসছে মধ্যবিত্তের। ১৫০ টাকার গন্ডি পেরিয়ে ২০০-তে গিয়ে ঠেকেছে পেঁয়াজের দাম। এহেন পরিস্থিতিতে বাজারে গিয়ে মাথায় হাত পড়ছে মধ্যবিত্তের। পেঁয়াজ কিনতে গিয়ে পকেটে টান পড়ছে উচ্চ থেকে মধ্যবিত্ত সকলেরই। পিঁয়াজ ছাড়া কীভাবে রান্না করবেন, সেই নিয়ে চিন্তিত সকলে। কিন্তু দামের সঙ্গে পাল্লা দিতে গিয়ে হিমশিম অবস্থা যেন প্রত্যেকেরই। কিন্তু পেঁয়াজ ছাড়া সুস্বাদু রান্না তা যেন ভাবা যায় না। তাই পেঁয়াজ তো খেতেই হবে কিন্তু কিনে নয়। বরং বাজারে না গিয়ে বাড়িতে বসেই পেঁয়াজ চাষ করুন। বাড়িতে যদি কোনও ফাঁকা জায়গা থাকে তাহলে তো কোনও কথা নেই, তা নাহলে বাড়ির টবেই করতে পারেন পেঁয়াজ চাষ। কিন্তু কীভাবে করবেন? এই  নিয়ে চিন্তার কোনও কারণ নেই। বাড়িতে কীভাবে পেঁয়াজ চাষ করা যায়, তার কয়েকটি সহজ টিপস রইল।

আরও পড়ুন- শীতের যত্নে নবজাতকের পরিচর্যা, জেনে নিন কয়েকটি সহজ উপায়...

 

বাড়িতে পেঁয়াজ চাষের জন্য প্রয়োজন একটি মাঝারি আকারের টবের। আলাদা একটি পাত্রের মধ্যে বেলে মাটি এবং দোআঁশ মাটি মিশিয়ে নিন। এবার টব ভর্তি করে মাটি দিন। বাজারে থেকে পিঁয়াজ কিনে আনুন। পেঁয়াজ শিকড় বেরোনো , এবং শিকড় ছাড়া দুরকমও নেওয়া যেতে পারে। শিকড় না বেরানো পেঁয়াজ হলে তার মুখ এবং পিছনের দিকের অংশ সামান্য কেটে নিন। আর শিকড় বেরোনো হলে তার কোনও প্রয়োজন নেই। এবার টব ভর্তি পেঁয়াজের মধ্যে পেঁয়াজ ঢুকিয়ে দিন। উপর দিয়ে আবার খানিকটা মাটি দিয়ে দিন।  এবার তার উপর সামান্য জল দিয়ে দিন। পুরেটা কমপ্লিট হলে সূর্যের আলো লাগে এমন জায়গায় টবটি সরিয়ে রাখুন।

 

আরও পড়ুন-শীতের উষ্ণতায় ট্রেন্ডি শাল, পুরোনো থেকে নতুন ফ্যাশনের রইল কয়েকটি হদিশ...

এইভাবে রেখে দেওয়ার ৬-১০ দিনের মাথায় দেখবেন টবে পুতে রাখা পেঁয়াজ থেকে পাতা বেরিয়েছে। এই পেঁয়াজ পাতাও অত্যন্ত সুস্বাদু, যা চাইনিজ রান্নায় অধিক ব্যবহার করা হয়ে থাকে। আরা যারা এই পাতা খান না তারা দেখবেন কয়েকদিন গেলেই ধীরে ধীরে পেঁয়াজ পাতা শুকিয়ে যাচ্ছে। সবুজ থেকে হলুদ রং হয়ে গেলেই বুঝবেন পেঁয়াজ তোলার সময় হয়ে গেছে। পেঁয়াজ টবে পোঁতার ১১০-১২০ দিনের মধ্যেই তা তোলা যায়। তাই আর দেরি না করে অগ্নিমূল্য বাজারে হেঁশেলে শান্তি আনতে বাড়ির টবে লাগিয়ে ফেলুন পেঁয়াজ গাছ।