চোখ ওঠা বা কন্‌জাঙ্কটিভাইটিস হল চোখের ভাইরাসজনিত ইনফেকশন। এই সংক্রমণের ফলে চোখ লাল হয়ে ফুলে ওঠে। এই সংক্রমণ জীবাণু দ্বারা আক্রান্তের ফলে, এডিনো ভাইরাসজনিত কারণে, হারপিস সিমপ্লেক্স ভাইরাসজনিত কারণে, স্কেলেরার ইনফেকশনজনিত কারণে, ইউভিয়াল টিস্যু ইনফেকশনজনিত কারণে হয়ে থাকে। ভাইরাস কেরাটাইটিস বা হারপেম সিমপেক্স ভাইরাসজনিত ইনফেকশনই মূলত এই সংক্রমণের কারণ। এই ধরনের ইনফেকশনে সাধারণত একটি চোখেই আক্রান্ত হয়ে থাকে।

আরও পড়ুন- শীত আসার আগেই বেড়ে গিয়েছে খুসকির সমস্যা, দূর করুন নিমেষে এই সহজ উপায়ে

এই সংক্রমণের ফলে চোখ জ্বলতে থাকে, সেই সঙ্গে চোখের ভিতরে অস্বস্থি শুরু হয়। চোখে ব্যাথাও হয়, এই সময়ে চোখে আলো পড়লে অত্যন্ত সমস্যা দেখা দেয়। এই সময় চোখ লাল হয়ে ফুলে ওঠে। সেই সঙ্গে ঘুম থেকে ওঠার পর চোখের পাতা দুটি এই সময় চোখে সৃষ্টি হওয়া পুঁজের ফলে আটকে যায়। ৪-৫ দিন টানা এই সমস্যার ফলে ধীরে ধীরে কমতে শুরু করে। এই সময় চোখের দৃষ্টি ঝাপসা হয়ে আসে। তবে এই সমস্ত সমস্যা একসঙ্গে দেখা নাও দিতে পারে। তবে মনে রাখতে হবে এই রোগ অত্যন্ত ছোঁয়াচে। তাই এই সমস্যা চোখে দেখা দিলে উপযুক্ত সাবধানতা অবলম্বন করা জরুরি।

আরও পড়ুুন- ব্লাডপ্রেসার থেকে কোষ্ঠকাঠিন্য, একগুচ্ছ সমস্যাতে ম্যাজিকের মত কাজ করবে মটরশুঁটি

এই রোগে আক্রান্ত হলে চিকিৎসকেরা ব্যকটেরিয়াজনিত সমস্যা হলে অ্যান্টিবায়োটিক ড্রপ বা অয়েনমেন্ট ব্যবহার করার পরামর্শ দেন। এছাড়া চোখের এই সমস্যায় পরিষ্কার কাপড়ের টুকরো বা গজ দিয়ে হালকা গরম জলে চোখ পরিষ্কার করার পরামর্শ দেন চিকিৎসকেরা। এই সময় চোখে মহিলাদের যে কোনও প্রসাধনী দ্রব্য ব্যবহার না করার পরামর্শ দেন চিকিৎসকেরা। হাত বার বার করে পরিষ্কার করুন, নোংরা হাত চোখে এই সময় ভুলেও দেবেন না। তবে সমস্যা এর থেকে অতিরিক্ত বেশি হলে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।