প্রোটিন ছাড়া কোনও প্রাণীর অস্তিত্ব কল্পনা করা সম্ভব নয়। তাই প্রোটিনকে সকল প্রাণের প্রধান উপাদান হিসেবে গণ্য করা হয়। সব প্রোটিনই কার্বন, হাইড্রোজেন, অক্সিজেন ও নাইট্রোজেন দিয়ে গঠিত। খাদ্যের ছয়টি উপাদানের মধ্যে প্রোটিন খুবই গুরুত্বপূর্ণ। প্রোটিন আমাদের দেহের পুষ্টিগুণ ও কার্যকারীতার জন্য প্রয়োজনীয় একটি উপাদান। তবে আমাদের প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় থাকা প্রোটিনের মধ্যে ডিম না পনির কার প্রোটিন-এর মাত্রা বেশি জেনে নেওয়া যাক-

আরও পড়ুন- কলা ও দুধ একসঙ্গে খাওয়া কি নিরাপদ, জেনে নিন এই বিষয়ে কি জানাচ্ছে বিশেষজ্ঞরা 

প্রাণিজগৎ থেকে পাওয়া প্রোটিনকে প্রাণিজ আমিষ বলে। যেমন: মাছ, মাংস, ডিম, দুধ ইত্যাদি। এই প্রোটিনকে প্রথম শ্রেণীর প্রোটিন বলে। ডিম অ্যামিনো অ্যাসিড সমৃদ্ধ। ডিমে রয়েছে ভিটামিন এবং প্রোটিন সমৃদ্ধ, পেশীর উন্নতি এবং প্রতিদিনের ডায়েটের জন্য উন্নত পুষ্টির চাহিদা মেটাতে সক্ষম। উদ্ভিদ জগৎ থেকে প্রাপ্ত প্রোটিন কে উদ্ভিজ্জ প্রোটিন বলে। যেমন: ডাল, বাদাম, সয়াবিন, শিমের বিচি ইত্যাদি। উদ্ভিজ্জ আমিষকে দ্বিতীয় শ্রেণীর আমিষ বলে।

আরও পড়ুন- এই নিয়মে গ্যাস বুক করলে পাবেন ৫০ টাকা ছাড়, IOC জানাল সেরা উপায় 

ওজন হ্রাস করতে এবং পেশী গঠনের জন্য প্রোটিন সমৃদ্ধ খাবার গুরুত্বপূর্ণ। ডিম এবং পনির দুটি সর্বাধিক প্রোটিন বিশিষ্ট খাবার। এই দুটি খাবারেই প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন রয়েছে। প্রোটিন ছাড়াও এগুলিতে অন্যান্য পুষ্টিও রয়েছে যেমন, ক্যালসিয়াম, ভিটামিন এবং আয়রন। ৪৪ গ্রাম ওজনের একটি সিদ্ধ ডিমের মধ্যে রয়েছে  প্রোটিন- ৫.৫ গ্রাম, ক্যালসিয়াম- ২৪.৬ মিলিগ্রাম, আয়রন- ০.৮ মিলিগ্রাম, ম্যাগনিসিয়াম- ৫.৩ মিলিগ্রাম।

আরও পড়ুন- শরীরের নানান সমস্যা করবে দূর, প্রতিদিন সকাল বেলা ডায়েটে রাখুন এই পানীয় 

পাশাপাশি পানির অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ দুগ্ধজাত পণ্য যাতে প্রচুর পুষ্টিগুণ রয়েছে। পনির প্রোটিন সমৃদ্ধ। এতে প্রচুর পুষ্টি থাকে যা শরীরের বৃদ্ধিতে সহায়তা করে, যেমন ক্যালসিয়াম, ফসফরাস এবং ভিটামিন। ৪০ গ্রাম পনিরে রয়েছে প্রোটিন- ৭.৫৪ গ্রাম, কার্বাহাইড্রেট-  ৪.৯৬ গ্রাম, ক্যালসিয়াম- ১৯০.৪ মিলিগ্রাম। তাই ডিম এবং পনিরে উভয়েই প্রচুর পরিমানে প্রোটিন থাকে। তবে পনিরে প্রোটিনের মাত্রা কিছুটা বেশি। এছাড়া অন্যান্য দুটি পুষ্টি উপাদান এই দুটিতে রয়েছে। ডিম এবং পনির ভিটামিন বি 12 এবং ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ। তাই এই দুটোই স্বাস্থ্যের পক্ষে খুব গুরুত্বপূর্ণ।