মুক্তোর মত সাদা ঝকঝকে দাঁত ব্যক্তির ব্যক্তিত্বকে নির্দেশ করে। প্রত্যেকেই এর জন্য দাঁতের যত্ন নেন। দন্ত  বিশেষজ্ঞদের মতে, শরীরের অর্ধেক রোগ দাঁত খারাপ হওয়ার কারণে হয়। সুতরাং দাঁত মানব দেহের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ। মানুষের বেঁচে থাকার জন্য যেমন খাবার ও পানীয়ের উপর নির্ভর করতে হয়। আর শরীরের প্রয়োজনীয় খাদ্যের প্রথম বিপাক ক্রিয়া শুরু হয় মুখ থেকেই। ফলে দাঁত পরিষ্কার না থাকলে মাড়ির ভিতরে আটকে থাকা খাবার জীবানু-সহ পেটে প্রবেশ করে। যার কারণে মানুষকে অনেক সমস্যার মুখোমুখি হতে হয়। অনেক সময় দাঁত এত খারাপ হয়ে যায় যে খাবার গ্রহণ করা কঠিন হয়ে পড়ে। একজনকে কেবল নরম খাবারেই বেঁচে থাকতে হয়। অতএব, যদি দাঁত পরিষ্কার করা শৈশবকাল থেকেই শুরু হয় তবে বছরের পর বছর ধরে এটি খারাপ হওয়ার কোনও সম্ভাবনা নেই।

দাঁত চকচকে এবং স্বাস্থ্যকর করুন- 

দাঁতে যখনই কোনও রোগ হয় তখনই আমাদের অবহেলা করি। এটাই দাঁত খারাপ হওয়ার পিছনে মূল কারণ। মুখ গন্ধহীন, চকচকে এবং স্বাস্থ্যকর দাঁত রাখতে, খাওয়ার পরে এগুলি ভালভাবে পরিষ্কার করা দরকার। অন্যথায়, খাবার দাঁতে আটকে যায় এবং কিছু সময়ের পরে, এতে ক্ষয় হওয়ার প্রক্রিয়া শুরু হয়। দাঁতগুলির জন্য ব্যবহৃত ব্রাশগুলি খুব নরম এবং খুব কড়া হওয়া উচিত নয়। দাঁতের সামগ্রিক সুরক্ষার জন্য, দাঁতগুলি সঠিকভাবে পরিষ্কার করা জরুরী। বিশেষজ্ঞদের মতে, একই ব্রাশটি বেশ কয়েক মাস ব্যবহার করা উচিত নয়।

দন্ত  বিশেষজ্ঞদের মতে, তিন মাস পর ব্রাশ পরিবর্তন করা উচিত। দাঁতে আটকে থাকা ময়লা অপসারণের পরে ব্রাশ করা শুরু করা উচিত। দাঁত ব্রাশ করার সময়, ব্রাশটি পেন রাইটিং স্টাইলে রাখা উচিত। ব্রাশ এবং পেস্ট দিয়ে দাঁত এবং মাড়িকে স্বাস্থ্যকর রাখা যায়। সঠিক ভাবে দাঁতের যত্ন না নেওয়ার ফলে এটি দুর্বল হয় এবং মাড়িও আক্রান্ত হয়। তাই ফ্লুরাইডযুক্ত পেস্ট ব্যবহার করা উচিত। ফ্লুরাইড দাঁতের দাগ এবং ক্যাভিটিস প্রতিরোধ করে।