হিমালয়ের কোলে এক অনবদ্য সুন্দর শহর ভুটান। যেখানে একই সঙ্গে পাওয়া যায় পাহাড়ে সৌন্দর্য, সঙ্গে থাকে বৌদ্ধ জীবন যাত্রার মেল বন্ধন। ঠাণ্ডায় হার কাঁপানো নয়, স্বাধাবিক তাপমাত্রারই দেখা মিলবে এখানে। তারই মাঝে মিলতে পারে দোচুলা পাসে বরফের বৃষ্টির দেখা। সব মিলিয়ে এক নিঃশব্দের নৈসর্গ হল ভুটান। যাঁর পরতে পরতে ছড়িয়ে রয়েছে হাজারো গল্প গাঁথা।

কী কী দেখবেনঃ অবশ্যই পুলসেলিং-এ গিয়ে প্রথম রাত থাকা। সেখানেই দেখা মিলবে চিড়িয়াখানাসহ আরও অনেক ছোট খাটো দফরতের। সেখান থেকে পার্মিশন করিয়ে নিয়ে বেড়িয়ে পড়া থিম্পুর উদ্দেশে। সেখানে দু দিন থেকে ঘুরে দেখা পুরো শহর। প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের মধ্যেই দৃষ্টি আকর্ষণ করে এই স্থান। দেখা মেলে বহু পাহাড়ের ধাপ কেটে চাষের জমির। সেখান থেকে বেড়িয়ে পড়া পারোর উদ্দেশে। সেখানেও থাকতে হবে দুই রাত। দেখা মিলবে টাইগার নেস্টের। সেখান থেকে চেলেল্লা হা। 

কীভাবে যাবেনঃ শিয়ালহদ থেকে কাঞ্চনকন্যা ট্রেনে চেপে পৌঁছে যেতে হবে হাসিমারা। সেখান থেকে গাড়ি করে পুলসেলিং। নয়তো পারো বিমানবন্দর থেকেও যাওয়া যেতে পারে।

মাথাপিছু খবচঃ ভুটানে খাওয়া দাওয়ার খরচ খানিকটা বেশি। ফলে হাতে একটু বেশি টাকা রাখাই ভালো। সব মিলিয়ে পাঁচরাতে এখানে খরচ হতে পারে খুব বেশি হলে ১৫০০০ টাকা।