স্বাস্থ্যগুণে সমৃদ্ধ রসুন এমন একটি উপাদান যা গৃহস্থালী থেকে শুরু করে চিকিৎসাতে ব্যবহার করা হয়। স্বাদেও যেমন ভরপুর এর পাশাপাশি স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী এই রসুন। অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল এবং অ্যান্টি প্যারাসাইট চিকিৎসার কাজে বহুল ব্যবহৃত একটিউপাদান হল রসুন। ব্যাকটেরিয়া, ফাংগাস, এবং প্যারাসাইট চিকিৎসায় বিগত সাত বছর ধরে রসুনের কদর এতটুকুও কমেনি। রসুন নানা কাজেই ব্যবহার করা হয়। রসুন দিয়ে তৈরি মাউথওয়াশ ব্যবহার করলেও ব্যাকটেরিয়ার হাত থেকে রক্ষা পাওয়া যায়। এবং নিঃশ্বাসও সতেজ হয়। রসুনের অব্যক্ত টোটকাতেও সেরে যায় বিভিন্ন রোগ। এমনি রসুন যেমন উপকারী তার চেয়েও অনেক বেশি উপকারী এই এককোয়া রসুন। এককোয়া রসুন শরীরের জন্য কতটা উপকারী জানুন এক ক্লিকে।

ঠান্ডা প্রতিরোধে

যারা দীর্ঘদিন ধরে ঠান্ডার সমস্যায় ভুগছেন সেখান থেকে চিরতরে মুক্তি পেতে গেলে প্রতিদিন খান এই এককোয়া রসুন।  কাঁচা রসুন চিবিয়ে খেতে পারলে তা অনেক বেশি কার্যকরী। আর যারা কাঁচা রসুন চিবিয়ে খেতে পারবেন না তারা চা-এর সঙ্গে খেতে পারেন। চাইলে মধু ও আদা সহযোগে এই রসুন খেতে পারেন। তবে রান্না করা রসুনের গুনাগুণ কাঁচা রসুনের থেকে অনেকটাই কম। তাই যতটা পারবেন কাঁচা রসুন খাওয়ার চেষ্টা করুন। এতে ঠান্ডা এবং সর্দি কাশি থেকে সহজেই মুক্তি পাওয়া যায়

ক্যান্সার রোধ করে

ক্যান্সার প্রতিরোধে রসুন খুবই কার্যকরী। গবেষণায় দেখা গেছে, রসুন খেলে স্টমাক, এবং কোলোরেকটাল ক্যান্সারের ঝুকি কমে। এছাড়াও ক্যান্সারের প্রতিরোধক হিসেবেও দারুণ কার্যকরী এই রসুন।

হৃদরোগ কমায়

রসুন খেলে শরীরে কোলেস্টেরলের মাত্রা কমে। অ্যালিসিনের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রক্তচাপ এবং গ্লুকোজ নিয়ন্ত্রণে রাখে। তবে রান্না করা রসুনের গুনাগুণ কাঁচা রসুনের থেকে অনেকটাই কম। তাই যতটা পারবেন কাঁচা রসুন খাওয়ার চেষ্টা করুন। 

ত্বকও চুল ভাল রাখে

রসুন ত্বকের যত্ন দারুণ কাজ করে। ত্বকের সজীবতা ধরে রাখতে রসুন দারুণ কার্যকরী। ত্বকের সজীবতা ধরে রাখে কোলাজেন। কিন্তু বয়সের সঙ্গে সঙ্গে তা ক্রমেই কমতে থাকে। রসুন সেই কোলাজেনের গতি কমিয়ে দেয়। ফলে বয়সের ছাপ অনেক দেরীতে পড়ে। এর পাশাপাশি চুলের জন্যও দারুণ উপকারী এই এক কোয়া রসুন।