শাজাহান আলি, পশ্চিম মেদিনীপুর-দশ বছর পর। দশ হাজার মানুষের সমাবেশ। পশ্চিম মেদিনীপুরে সিপিএমের মহামিছিলে কাতারে লোক। জনঅরণ্য দেখে আত্মবিশ্বাসী হলেন সিপিএমের রাজ্য সম্পাদক সূর্যকান্ত মিশ্র। 

আরও পড়ুন-সম্পর্কে টানাপোড়েন, প্রেমিকার 'গলায় ছুরি চালিয়ে' আত্মহত্যার চেষ্টা যুবকের

রাজ্যের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি, হাথরস কাণ্ড, কৃষি আইন সহ একাধিক ইস্যুতে বুধবার মেদিনীপুর শহরে মিছিল করে সিপিএম-কংগ্রেস। কংগ্রেসেরে গুটি কয়েক লোক নজরে আসে। কিন্তু কাতারে কাতারে মিছিলে যোগ দেন সিপিএম কর্মী সমর্থকরা। মিছিলের নেতৃত্বে ছিলেন সিপিএমের রাজ্য সম্পাদক সূর্যকান্ত মিশ্র। জেলা সম্পাদক তরুণ রায় সহ অনেকে। মিছিল শেষে আত্মবিশ্বাসী সূর্যকান্ত মিশ্র বলেন, ''বিজেপি একটা ক্ষতিকারক শক্তি। দিল্লিতে সরকার গড়লে বিপদ বাড়বে। কিন্তু এই রাজ্য়ে অনেক বেশি প্রয়োজন তৃণমূলকে সরানো''। সিপিএম আগের তুলনায় মানুষের বিশ্বাস ও আস্থা অর্জন করতে পেরেছে বলে দাবি করলেন সূর্যকান্ত মিশ্র।  তিনি আরও বলেন, ''২০১৬ সালে আমরা মানুষের বিশ্বাস অর্জনের চেষ্টা করেছিলাম। কিন্তু তার মধ্যে অস্পষ্টতা ও অল্প সময় ছিল। কিন্তু এখন ভোটের সময় নয়। তবুও আমরা বিশ্বাস করছি আমরা সেই বিকল্প হতে পারব''। 

আরও পড়ুন-বেতন-বোনাসের দাবিতে শ্রমিক অসন্তোষ, জুটমিল বন্ধের প্রতিবাদে রণক্ষেত্র টিটাগড় রোড

রাজ্যের আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীকে নিশানা করেন সূর্যকান্ত মিশ্র। তিনি বলেন, ''হাথরস কাণ্ড দেশে বিদেশে স্থান পেয়েছে। কিন্তু এরাজ্যেও তা ব্যতিক্রম নয়। এখানে নবম শ্রেণির আদিবাসী ছাত্রীকে ধর্ষণ করে খুন করা হয়েছে। এ বিষয়ে কোনও কথা বলেননি মুখ্যমন্ত্রী''। পাশাপাশি, ছত্রধর মাহাতোকে তৃণমূলের সাধারণ সম্পাদক করা নিয়ে মমতাকে কটাক্ষ করেন সূর্যকান্ত। তিনি বলেন, ''মাওবাদীদের প্রধান যিনি, যিনি জ্ঞানেশ্বরী দুর্ঘটনার নায়ক। তিনিই এখন তৃণমূলের সাধারণ সম্পাদক। তৃণমূলের মধ্যেই মাওবাদী রয়েছে''।