সঞ্জীব কুমার দুবে, পূর্ব মেদিনীপুর-করোনা আবহে দীর্ঘদিন প্রকাশ্যে জনসভায় দেখা যায়নি শুভেন্দু অধিকারীকে। দলীয় প্রতিক ছাড়াই নিজে এখন সমাজসেবীর ভূমিকায়। তৃণমূলের সংগঠনের কাজেও সেভাবে দেখা যায় না তাঁকে। দলের মধ্যে কোণঠাসা হয়ে এখন তাঁর গুরুত্ব হারিয়ে গিয়েছে বলে মত রাজনৈতিকমহলের। এই অবস্থায় নন্দীগ্রামে ভূমি আন্দোলনের শহিদ স্মরণ মঞ্চে দেখা গেল শুভেন্দু অধিকারীকে। সেখানে যা মন্তব্য করলেন, তা নিয়ে রীতিমত জল্পনা শুরু হয়েছে রাজ্য রাজনীতিতে।

মঙ্গলবার নন্দীগ্রামের সোনাচূড়াতে নন্দীগ্রাম ভূমি আন্দোলনের নেতা শহিদ নিশীকান্ত মণ্ডলের স্মরণসভার আয়োজন করা হয়। সেখানে উপস্থিত হয়েছিলেন তৃণমূলের মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী। তিনি বলেন, ''শুভেন্দু অধিকারী যেদিন আপনাদের কাছে এসেছিলাম সেদিন আমি সাংসদ ছিলাম না। আমি ছিলাম দক্ষিণ কাঁথির বিধায়ক। সেদিন নিশিকান্ত মণ্ডল আমাকে ডেকে জমি আন্দোলনের বীজ বোপন করেছিলেন। সেই স্মৃতি আজও ভোলার নয়''। 

তিনি আরও বলেন, ''যাঁরা অতীত ভুলে যান, তাঁদের ভবিষ্যৎ উজ্জ্বল হতে পারে না, তাঁদের ভবিষ্যৎ অন্ধকার''। শুভেন্দু এই মন্তব্যে ঘিরে পূর্ব মেদিনীপুর জেলা জুড়ে শুরু হয়েছে জল্পনা। কাকে ইঙ্গিত করে এই কথা বলছেন শুভেন্দু? শুরু হয়েছে রাজনৈতিক চাপানউতোর।

আরও পড়ুন-'টাকা ধার নিয়ে ফেরত দেয়নি অনুব্রত মণ্ডল', ফোনে খুনের হুমকি দিয়ে গ্রেফতার তৃণমূল নেতা

নন্দিগ্রাম জমি আন্দোলনের মধ্যে দিয়ে সিপিএমের পঁয়ত্রিশ বছরের শাসনকে হারিয়ে রাজ্য ক্ষমতায় এসেছিল তৃণমূল। শুভেন্দু অধিকারীর নেতৃত্বে পাহাড় থেকে জঙ্গল সব জায়গাতেই তৃণমূলের শক্ত ঘাঁটি তৈরি হয়। দলের গুরুত্বপূর্ণ পদেও থেকেছেন শুভেন্দু। কিন্তু এখন তিনি দল থেকে অনেকটাই দূরে।  একুশের বিধানসভা ভোটের আগে শুভেন্দুর 'অতীত ভোলার' মন্তব্য বেশ তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল।

আরও পড়ুন-জঙ্গলের রাস্তায় সবজি বিক্রেতার পথ আটকাল হাতি, সবজি খাইয়ে বাঁচল নিজের প্রাণ