নির্লজ্জতার সব সীমা পার করল পাকিস্তানি সেনা। করোনাভাইরাস-এর প্রকোপ রোধ করতে সারা বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে ভারতেও যখন লকডাউন প্রোটোকল চলছে, সেই সময়-ও যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন করে চলেছে তারা। শুধু তাই নয়, সাধারণ নাগরিকরা যখন সবাই ঘরে বন্দি হয়ে আছেন, সেই সময় বেঝে বেঝে তাদের ঘরবাডড়িকে আক্রমণ করছে তারা। রবিবার বিকেলে এইরকম এক নক্কারজনক হামলায় প্রাণ গেল তিন অসামরিক নাগরিক-এর।

জানা গিয়েছে, এদিন দুপুর থেকেই আচমকা জম্মু ও কাশ্মীরের কুপওয়ারা জেলায় ভারী গোলা বর্ষণ শুরু করে পাক রেঞ্জাররা। ভারতীয় সেনা-ঘাঁটিগুলির পাশাপাশি নিয়ন্ত্রণরেখা এলাকার ভারতীয় নাগরিকদের বাড়িগুলি বেছে বেছে নিশানা করা হয় বলে অভিযোগ। কুপওয়ারা সেক্টরের বেশ কয়েকটি বাড়ি পাক গোলার আঘাতে দারুণ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে জানিয়েছেন ভারতীয় সেনা। আর তিন নাগরিকরে মৃত্যুর খবর এসেছে, কুপওয়ারা, চৌকিবল-এর তুমিনা ও হান্দওয়ারা সেক্টর থেকে।

এদিনের মৃত তিন ব্যক্তির মধ্যে চৌকিবল-এর তুমিনায় মৃত্যু হয়েছে মাত্র আট বছরের ছোট্ট শিশু জিয়ান আহমেদ-এর। এদিন বিজেপির সর্বভারতী সাধারণ সম্পাদক রাম মাধব ওই শিশুটির নিথর দেহ আঁকড়ে তার মায়ের হাহাকারের একটি ছবি প্রকাশ করেছেন।

গত রবিবারও একইভাবে যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন করে ভারতীয় সেনার ঘাঁটিগুলি লক্ষ্য করে গোলাবর্ষণ করেছিল পাক রেঞ্জাররা। তার জবাবে, গত শুক্রবারই, ভারতীয় সেনা এই কুপওয়ারা জেলা থেকেই উল্টোদিকের পাকিস্তান সেনাদের একটি গোলা বারুত রাখার মজুত ঘর, একটি জঙ্গি লঞ্চ প্যাড ও আরও একটি সামরিক স্থাপা উড়িয়ে দিয়েছিল। সেই প্রত্তুত্তরের একটি এরিয়াল ভিডিও ফুটেজ-ও প্রকাশ করেছিল সেনা। ওই ঘটনায় অন্তত, আট জঙ্গি ও ১৫ পরাক সেনা জওয়ানের মৃত্যু হয়েছে বলে দাবি করেছিল সেনা।