ভারতের চন্দ্রযান ২-এর ল্যান্ডার চাঁদের বুকে সঠিকভাবে অবতরণ করতে না পারার পরই টুইট করে নিজের ঈর্ষা প্রকাশ করেছিলেন পাক প্রযুক্তি মন্ত্রী ফাওয়দ চৌধুরি। কিন্তু, বিজ্ঞানের চর্চা যাঁরা করেন, রাজনীতিকদের মতো তাঁদের মধ্যে যে বৈরিতা থাকে না, তা বুঝিয়ে দিলেন এক পাকিস্তানিই। তিনি সেই দেশের প্রথম নভোশ্চর নামিরা সালিম। চন্দ্রযান ২ অভিযানের জন্য তিনি ভারত ও ইসরো-কে অভিনন্দন জানিয়েছেন।

করাচির এক পত্রিকাকে দেওয়া সাক্ষাতকারে তিনি চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে ভারতের সফ্টল্যান্ড করার চেষ্টাকে ঐতিহাসিক বলেছেন। তাঁর মতে চন্দ্রযান ২ অভিযান দক্ষিণ এশিয়ার জন্য এক বিশাল অগ্রগতি বলে মনে করেন তিনি। তাঁর আরও দাবি ভারতের এই চন্দ্র অভিযান সমগ্র বিশ্বের মহাকাশচর্চাকারীদের জন্যই অত্যন্ত গর্বের।  

তিনি আরও জানান, পৃথিবীতে যে বিভিন্ন দেশের রাজনৈতিক গণ্ডি রয়েছে, তা মহাকাশে হারিয়ে যায়। সেখানে কেউ পাকিস্তানি বা কেউ ভারতীয় নয়, সেখানে সবাই এক মানব জাতি। তাই কোনও বিশেষ দেশ নয়, তাঁর দাবি সমগ্র দক্ষিণ এশিয়াই মহাকাশ অভিযানের ক্ষেত্রে অভাবনীয় উন্নতি করেছে।

২০০৫ সালে ভার্দজিন সংস্থার মালিক রিচার্ড ব্র্যানসনের ভার্দিন গ্যালাকটিক বানিজ্যিক মহাকাশযানে মহাকাশ যাত্রা করেছিলেন।