পাকিস্তানে ফের আক্রান্ত হিন্দু সংখ্যালঘুরা। এদিন পাকিস্তানের সিন্ধ প্রদেশে এক হিন্দু শিক্ষকের ওপর হামলা চালানো হয়েছে বলে খবর। শুধু তাই নয় একটি হিন্দু মন্দিরেও ভাঙচুড় চালানো হয়েছে বলে খবর। 

ঘটনাটি ঘটে যখন পাকিস্তানের সিন্ধ প্রদেশে বসবাসকারী সংখ্যালঘু হিন্দু সম্প্রদায়ের এক স্কুলের অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে অভিযোগ তোলা হয় যে, তিনি অন্য ধর্মের বিরুদ্ধে আঘাত হানছেন। আর সেই অভিযোগের ওপর ভর করেই, এই ঘটনা হিংসাত্মক আকার ধারণ করে। 

শনিবার সিন্ধ প্রদেশের ঘোটকি এলাকার একটি স্কুলের এক ছাত্রের বাবা আবদুল আজিজ রাজপুত নামে এক ব্য়ক্তির অভিযোগ ওই শিক্ষক স্কুলের ছাত্রের সামনে এমন কিছু মন্তব্য করছেন যাতে করে ইসলাম ধর্মের আঘাত করা হয়। এই ঘটনার জেরে সাম্প্রদায়িক হানাহানি শুরু হলে অভিযুক্ত নোটন মাল নামে ওই হিন্দু শিক্ষককে গ্রেফতারের দাবি তোলে সকলে। সেইসঙ্গে বিক্ষোভকারীরা স্কুলের জিনিসপত্র তছনছ করে এবং মন্দিরও ভাঙচুড় করে বলে জানা গিয়েছে।

উড়ানের পরই ইঞ্জিনে আগুন, বড়সড় বিপত্তির হাত থেকে রক্ষা পেল পাক বিমানের ২০০ যাত্রী

যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘনের জের, সাদা পতাকা দেখিয়ে উদ্ধার করা হল নিহত দুই পাকিস্তানি সেনাকে

ইসলাম মানসিক রোগ বলছে 'বন্ধু' চিন, ইমরান বলছেন বিশেষ কিছু জানি না

ভারত-পাক যুদ্ধ নিয়ে বড় স্বীকারোক্তি, পরমাণু-সম্ভাবনা উসকেও হার মেনে নিলেন ইমরান

আর এই সমস্ত ঘটনা ঘটেছে পুলিশের উপস্থিতিতেই। বিক্ষোভকারীদের এই বিক্ষোভ আন্দোলন-এর একটি ভিডিও ভাইরায় হয়েছে যেখানে গোটা বিক্ষোভের ছবি ধরা পড়েছে। সিন্ধ প্রদেশের ঘোটকি এলাকার সংখ্যালঘু হিন্দুরা এখন চরম ভয়ের মুখে। জানা গিয়েছে স্কুলের সম্পত্তি নষ্ট করার পাশাপাশি তিনটি হিন্দু মন্দিরেও হামলা চালানো হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। উগ্রপন্থী নেতা মিঞা মিঠু এবং তার দলবল ঘোটকিতে হিন্দুদের ওপর হামলায় জড়িত রয়েছে বলে অভিযোগ।