টুইটারেও প্রথম স্ত্রী জেমাইমা গোল্ডস্মিথ-এর সঙ্গে বিচ্ছেদ ঘটে গেল পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের। মঙ্গলবার দেখা গিয়েছে তিনি জেমাইমাকে টুইটারে আনফলো করে দিয়েছেন। তবে শুধু জেমাইমাই নয়, আচমকা তিনি আনফলো করেছেন সবাইকেই। তাঁর এই সকলকে আনফলো করার কারণ নিয়ে নেটদুনিয়ায় জল্পনা তৈরি হয়েছে। কেউ কেউ বলছেন প্রাক্তন পাক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের কারণেই এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ইমরান।

আরও পড়ুন - উচ্চতা বাড়ল বিশ্বের সর্বোচ্চ পর্বত শিখর এভারেস্ট-এর, পিছনে পড়ে রইল রাধানাথের গণনা

আরও পড়ুন - বিশ্বের প্রথম কোভিড টিকা পেলেন ৯০ বছরের দিদিমা, তারপরই উইলিয়াম শেক্সপিয়ার

আরও পড়ুন - বাংলাদেশ কি চলে যাবে ইসলামি চরমপন্থীদের হাতে - ভয় ধরাচ্ছে হেফাজত-এ-ইসলাম, দেখুন ছবিতে ছবিতে

পাক গণমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, সোমবার সন্ধ্যা থেকেই পাকিস্তানি প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান তাঁর অফিসিয়াল টুইটার পেজে সকলকে আনফলো করা শুরু করেছিলেন। কেন তিনি এই কাজ করলেন, সেই বিষয়ে ইমরান কিছু জানাননি। তবে অনেকেই দাবি করছেন, নওয়াজ শরিফের কারণেই টুইটারে সকলকে আনফলো করেছেন তিনি। তাঁদের মতে সম্প্রতি ইমরান সম্ভবত নওয়াজ শরীফ টুইটার টাইমলাইনটি পরিদর্শন করেছেন। আর তাতেই বুঝতে পেরেছেন শরিফ-কে অনেকে ফলো করলেও, তিনি নিজে কাউকতে ফলো করেন না। এতেই সম্ভবত তাঁর মনে হয়েছে, তিনি কাউকে ফলো করলে, নওয়াজ শরীফের সামনে তাঁকে ছোট দেখাবে। আর তাই তিনি নিজের টাইমলাইনে ফিরে এসে সবাইকে আনফলো করেছেন।

তবে অন্য কাউকে নিয়ে নেটিজেনদের কিছু বলার না থাকলেও ইমরান খান তাঁর প্রথম স্ত্রী জেমাইমা গোল্ডস্মিথকে আনফলো করায় অনেকেই হতাশ হয়েছেন। ২০১০ সালে নিজের টুইটার প্রোফাইল তৈরি করেছিলেন ইমরান খান। সেই থেকেই জেমাইমা-কে ফলো করতেন তিনি। তার মাঝে জেমাইমার সঙ্গে তাঁর বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটে দিয়েছে, আরও দুবার বিবাহও করেছিলেন ইমরান। এতদিন পর টুইটারেও সেই সম্পর্কের বিচ্ছেদ ঘটে গেল। এতে এতদিন পরও জেমইমা দুঃখ পাবেন বলে মন্তব্য করেছেন কেউ কেউ।