দীর্ঘ দিন ধরেই যে অভিযোগটা ভারত করে আসছে এবার সেই অভিযোগই করছে পারিস্তান। তাও আবার পাকিস্তানের দায়িত্ব প্রাপ্ত ভারতীয় রাষ্ট্রদূতের কাছে। নিয়ন্ত্রণ রেখা সংলগ্ন একায় ভারতীয় সেনা বাহিনী যুদ্ধ বিরতি লঙ্ঘন করেছে। বারবার সীমান্তবর্তী এলাকায় গুলি চালাচ্ছে ভারতীয় বাহিনী। তেমনই অভিযোগ পাকিস্তানের। আর এই অভিযোগ জানাতেই রীতিমত তলব করা হল ইসলামাবাদে ভারতীয় রাষ্ট্রদূতের অফিসে কর্মরত সিনিয়র কূটনীতিককে। 

পাক বিদেশ মন্ত্রকের তরফ থেকে একটি বিবৃতি জারি করে জানান হয়েছে, রবিবার নিকিয়াল সেক্টরে নির্বিচারে গুলি বর্ষণ হয়েছে। আর সেই কারণেই তিন শিশু সহ পাঁচ সাধারণ মানুষের মৃত্যু হয়েছে। পাকিস্তানের আরও অভিযোগ রয়েছে, এলওসি ও  ওয়ার্কিং বাউন্ডারি এলাকায় ভারতীয় বাহিনী ধারাবাহিকভাবে আর্টিলারি ফায়ার, ভারী ক্যালিবার মর্টার ও স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র দিয়ে বেসামরিক জনবহুল অঞ্চলকে নিশানা বানাচ্ছে। চলতি বছর যুদ্ধ বিরতি লঙ্ঘনের ঘটনা ঘটেছে ১,৫৯৫টি। আর ভারতীয় বাহিনীর গুলিতে মৃত্যু হয়েছে ১৪ পাক নাগরিক। আহত হয়েছে ১২১ জন। যদিও এখনও পর্যন্ত ভারতের পক্ষ থেকে কোনও প্রতিক্রিয়া জানান হয়নি। 

হাসপাতালের ৪ তলা থেকে ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা, সংকটজনক অবস্থায় করোনা আক্রান্ত সাংবাদিক ...

ভারতের ওপর চাপ বাড়াতে অন্য কৌশল বেজিং-এর, আচমাকাই ভূটানের বনভূমিতে ড্রাগনের নিঃশ্বাস ...

পাকিস্তান যে সীমান্ত চুক্তি লঙ্ঘন করে সেই অভিযোগ বারবারই করে আসছে ভারত।  ভারতের অভিযোগ কাশ্মীর সীমান্তে অধিকাংশ সময়ই যুদ্ধ বিরতি লঙ্ঘন করে পাকিস্তান। জঙ্গি অনুপ্রবেশের সময় চলে সিজ ফায়ার। যেকারণে অধিকাংশ সময়ই সমস্যায় পড়তে সীমান্তবর্তী গ্রামের বাসিন্দাদের। 

গ্যালওয়ানে সেনা সরলেও উত্তেজেনা বাড়ছে দক্ষিণ চিন সাগরে, সামুদ্রিক মহড়া নিয়ে বেজিংকে হুঁশিয়ারি পেন্...


তবে পাকিস্তান এবার নাকি  ২০০৩ সালে যুদ্ধ বিরতি চুক্তিকে সম্মান জানানোর আহ্বান করেছে  ভারতের কাছে । পাশাপাশি সীমান্ত এলাকায় শান্তি রক্ষারও আবেদন  জানান হয়েছে। আর বলা হয়েছে, কী কারণে সীমান্ত অশান্ত হয়ে উঠছে তার তদন্ত করতে।