বারমেরে জাতীয় মোটর ব়্যালিতে ভায়াবহ দুর্ঘটানয় প্রাণ গেল একই পরিবারের তিন জনের। অর্জুন পুরস্কার প্রাপ্ত ভারতীয় মোটরস্পোর্টস ড্রাইভআর গোরব গিলের গাড়ীর সঙ্গে ধাক্কা লাগে একটি বাইকের, আর তাতেই প্রাণ গেল বাইকে সেওয়ার এক পরিবারের তিন জনের। মৃতরা হলেন নরেন্দ্র কুমার, তার স্ত্রী পীযুষা দেবী ও তাদের ছেলে জিতন্দ্র কুমারের। আহত হয়েছেন গৌরব গিলও। ঘটনায় গৌরব থেকে শুরু করে আয়োজক কমিটির বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। থায়ান অভিযোগ জানিয়েছে মৃত বাইক চালক মহেন্দ্রর বড় ছেলে  রাহুল। 

আরও পড়ুন - মাথায় বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপ, রাতেও অনুশীলন দ্যুতির

রাহুল পুলিশকে জানিয়েছিলেন তার পরিবার রাস্তার ধারে দাঁড়িয়ে কথা বলছিল, সেই সময়ই গৌরবের গাড়ী এসে ধাক্কা মারে। এরপর আরও দুটি গাড়ী  তাদের ওপর দিয়ে চলে যায়। পুলিশ গৌরব ও তার সহকারী ড্রাইভারের বিরুদ্ধে অনিচ্ছাকৃত খুনের মামলা রুজু করেছে। পাশাপাশি এই ঘটনায় ক্ষুব্ধ এলাকাবাসী। মৃতের পরিবারের সদস্যদের মধ্যে থেকে একজনকে সরকারী চাকরী ও ক্ষতিপুরণ দাবি করার পাশাপাশি গৌরবের গ্রেফতারিও দাবি করা হয়েছে। 

আরও পড়ুন - চোটের জন্য ফাইনাল থেকে নাম প্রত্যাহার দীপকের, বিশ্ব চ্যাম্পয়নশিপে রুপো পেলেন তরুণ কুস্তিগীর

কিন্তু প্রশ্ন একটাই, জাতীয় পর্যায়ের একটা প্রতিযোগিতা ঠিক কি ভাবে আয়োজন করছিলেন আয়োজকরা। গ্রামের মানুষদের বিরুদ্ধেই অভিযোগের আঙ্গুল তুলছেন আয়োজকরা। তাদের মতে প্রতিযোগিতার দিন ১৫ আগে থেকেই গোটা অঞ্চলের গ্রামের মানুষকে জানানো হয়েছিল প্রতিযোগিতার রাস্তাটি যেন ব্যবহার না করা হয়। কিন্তু গ্রামবাসীরা কথা সেই কথা কানে তোলেননি। এমনকি দুর্ঘটনার আগেও মৃত মহেন্দ্রর সঙ্গে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা কর্মীদের বচসা হয়। গ্রামের লোকজন নাকি ব্যারিকেড সরিয়ে রাস্তা ব্যবহার করছিলেন। এতই এই ভয়াবহ পরিণতি। 

আরও পড়ুন - আরও বাড়ল ছুটির মেয়াদ, নভেম্বর পর্যন্ত ক্রিকেটে নেই ধোনি, এমনই খবর ক্রিকেট মহলে