আরও আশঙ্কাজনক অবস্থায় হকি লেজেন্ড বলবীর সিং সিনিয়র। তার মস্তিষ্কে রক্তজমাট বাধার কারণে সেমি কোমাটোজ অবস্থায় রয়েছে প্রাক্তন হকি তারকা। দিল্লির একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন তিনি। এক বিবৃতিতে বলবীর সিং সিনিয়রের নাতি কবীর জানিয়েছেন, হকি লেজেন্ড হেমোডাইনামিকভাবে স্থিতিশীল থাকলেও, তার অবস্থা আশঙ্কাজনক। তবে শেষ কয়েক দিনে আরও কোনও কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট হয়নি তার। এমআরআই রিপোর্টে তার মস্তিষ্কে একটি ছোট্ট রক্ত জমাট ধরা পরেছে। যার কারণেই তার জ্ঞান ফিরতে সমস্যা হচ্ছে। মেডিকেলের ভাষায় যাকে সেমি কোমাটোজ বলা হয়। বর্তমানে তিনি ভেন্টিলেশনেই রয়েছে। তার ফুসফুসে নিউমোনিয়াও রয়েছে। চিকিৎসকরা সর্বক্ষণ পর্যবেক্ষণে রেখেছেন অলিম্পিক পরপর তিনটি স্বর্ণপদক জয়ীকে। পাশাপাশি তার শারীরিক অবস্থায় সমস্ত তথ্য যথাসময়ে দেওয়া হচ্ছে বলবীর সিং সিনিয়রের পরিবারের সদস্যদের।

আরও পড়ুনঃ২০০৩ বিশ্বকাপে সচিনকে আউট করে দুঃখ পেয়েছিলাম, জানালেন শোয়েব আখতার

গত ৮ মে জ্বর, সর্দি, কাশির উপসর্গ নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন ভারতের কিংবদন্তি হকি তারকা বলবির সিং।  মোহালির এক বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করানো হয় তাকে। করোনার উপসর্গ থাকায় চিকিৎসকরা কোনও ঝুঁকি না নিয়ে বলবীর সিং এর করোনা টেস্ট করান। সেই রিপোর্ট নেগেটিভ আসে।  এরপর সুস্থ হওয়ার পথেই এগোচ্ছিলেন ৯৬ বছর বয়সী এই প্রাক্তন হকি তারকা।  কিন্তু আচমকাই মঙ্গলবার সকালের দিকে হৃদরোগে আক্রান্ত হন তিনি। সঙ্গে সঙ্গে তাঁকে ভেন্টিলেশনে রাখার ব্যবস্থা করা হয়। কিন্তু পর আরও দুটি কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট হওয়ায় চিন্তা কিছুটা বাড়ে চিকিৎসকদের। যদিও তারপর থেকে আর কোনও কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট না হওয়ায় কিছুটা স্বস্তিতে রয়েছেন চিকিৎসকরা। তবে তার শারীরিক পরিস্থিতি যে সংকটজনক তা জানিয়ে দেওয়া হয়েছে হাসপাতালের তরফে। 

আরও পড়ুনঃঅবশেষে সিদ্ধান্ত বদল,কোয়ারেন্টাইন সেন্টার হচ্ছে না ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়াম

আরও পড়ুনঃদর্শক নয় স্টেডিয়াম ভর্তি সেক্স ডলে, এমন পরিবেশে ম্যাচ খেললেন ফুটবলাররা

১৯২৩ সালের ৩১ ডিসেম্বর জন্মগ্রহণ করেন বলবীর সিং। ছোট বেলা থেকেই হকিই ছিল তার ধ্যান,জ্ঞান। খেলোয়ার জীবনে অলিম্পিকে ভারতের হয়ে তিনটি গোল্ড মেডেল জিতে অনন্য নজির গড়েছেন তিনি। পরপর তিনটি ১৯৪৮ লন্ডন অলিম্পিক, ১৯৫২ হেলসেনকি অলিম্পিক, ১৯৫৬ মেলবোর্ন অলিম্পিকে সোনা পান বলবীর সিং।  এরমধ্যে ১৯৫২ সালে ভারতীয় দলের সহ অধিনায়ক ও ১৯৫৬ সালে ভারতীয় দলের অধিনায়ক ছিলেন তিনি। ১৯৫২ অলিম্পিক ফাইনালে নেদারল্যান্ডের বিরুদ্ধে ৬-১ গোলে জেতে ভারত। একাই পাঁচটি গোল করেছিলেন বলবীর সিং সিনিয়র। যা এখনও পর্যন্ত অলিম্পিকের ইতিহাসে ফাইনালে ব্যক্তিগত গোলের রেকর্ড।  ১৯৫৮ সালে টোকিও এশিয়ান গেমসে ভারতের হয়ে রূপো জেতেন বলবীর সিং। কোচ হিসেবেও ১৯৭৫ সালে ভারতকে হকি বিশ্বকাপ চ্যাম্পিয়ন করেছেন তিনি। ১৯৭১ সালে তার কোচিংয়ে ব্রোঞ্জ পদক জেতে ভারতীয় দল। এহেন তারকা বর্তমানে পাঞ্জা লড়ছেন মৃত্যুর সঙ্গে। প্রাক্তন হকি লেজেন্ডের দ্রুত আরোগ্য কামনা করেছে বারতীয় ক্রীড়া মহল।