করোনা আবহে ঠখন বিশ্ব জুড়ে বন্ধ সমস্ত স্পোর্টিং ইভেন্ট। ফের কবে সব ধরনের খেলা শুরু হবে তার উত্তর জানেন না কেউ। অনিশ্চয়তায় ভুগছেন ক্রিকেট, ফুটবল, টেনিস থেকে শুরু করে সব খেলার প্লেয়ার থেকে কর্মকর্তারা। ঠিক তখনই আরও একবার বিশ্ব টেনিসে ভারতের নাম উজ্জ্বল করলেন ভারতীয় টেনিস তারকা সানিয়া মির্জা। শুধু ভারতের নয়, উপমহাদেশের প্রথম টেনিস তারকা হিসেবে ফেড কাপের ‘হার্ট অ্যাওয়ার্ড’ জিতলেন ,ানিয়া মির্জা। মাতৃত্বকালীন অবসর কাটিয়ে কোর্টে ফেরার পর ফেড কাপে অনবদ্য অবদান রাখার জন্যই এই পুরস্কার ওঠে সানিয়ার হাতে। সমর্থকদের অনলাইন ভোটের মাধ্যমেই মনোনীত তারকাদের থেকে বেছে নেওয়া হয় বিজয়ীকে। গত ১ মে থেকে এক সপ্তাহের অনলাইন ভোটিং শেষে সানিয়ার নাম বিজয়ী হিসেবে ঘোষণা করা হয় ফেড কাপ কর্তৃপক্ষের তরফে।

আরও পড়ুনঃফিরছে জার্মান পাওয়ার ফুটবল, জেনে নিন ২০১৯-২০ মরসুমে বুন্দেসলিগার প্রথম ৫ গোলদাতাদের পরিসংখ্যান

সানিয়া চার বছর পর ফেড কাপে ফিরে আসেন৷ ইতিহাসে প্রথমবারের মতো প্লে-অফের জন্য ভারতকে যোগ্যতা অর্জনে সহায়তা করেছিলেন। অক্টোবরে ২০১৮ সালে তার পুত্র ইজহানকে জন্ম দেওয়ার পরে, সানিয়া চলতি বছরের জানুয়ারিতে কোর্টে প্রত্যাবর্তন করেছিলেন৷ তাত্ক্ষণিকভাবে নাদিয়া কিচেনোকের পাশাপাশি হোবার্ট ইন্টারন্যাশনালে মহিলাদের ডাবলস খেতাব অর্জন করে সাফল্য অর্জন করেন ভারতীয় এই টেনিস তারকা৷ বিশ্বকাপের ডাবলস এবং ছ’বারের গ্র্যান্ড স্ল্যাম চ্যাম্পিয়ন সানিয়া এশিয়া-ওশেয়ানিয়া আঞ্চলিক বিভাগে পুরষ্কারের জন্য ইন্দোনেশিয়ার ১৬ বছরের প্রিস্কা মেডেলিন নগ্রোহোকে পরাজিত করেছিলেন। প্রতিটি বিভাগের বিজয়ীরা ২ হাজার মার্কিন ডলার পুরষ্কার হিসাবে পেয়েছিলেন৷ এশিয়া-ওশেনিয়া গ্রুপে মোট ভোট পড়ে ১৬,৯৮৫। যার মধ্যে ১০ হাজারেরও বেশি ভোট পেয়েছেন সানিয়া। অর্থাৎ, ৬০ শতাংশেরও বেশি ভোটে তিনি এই পুরস্কার জেতেন। সর্বভারতীয় টেনিস সংস্থার তরফে বিজ্ঞপ্তি মারফৎ সানিয়া জানান, ‘প্রথম ভারতীয় হিসেবে ফেড কাপের হার্ট অ্যাওয়ার্ড জেতা গর্বের বিষয়। আমি এই পুরস্কার উৎসর্গ করছি সারা দেশ ও আমার সমর্থকদের। ধন্যবাদ জানাই তাঁদের, যাঁরা আমাকে ভোট দিয়েছেন। আশা করি ভবিষ্যতে দেশকে আরও সম্মান এনে দিতে পারব।’ 

 

 

আরও পড়ুনঃঅবসর ঘোষণা দীপা মালিকের, দায়িত্ব সামলাবেন জাতীয় প্যারালিম্পিক কমিটির

নিয়ম অনুযায়ী পুরস্কার মূল্যের ২ হাজার মার্কিন ডলার যা ভারতীয় মুদ্রায় দেড় লক্ষ টাকার কিছু বেশি, বিজয়ী তারকা তাঁর পছন্দ মতো কোনও সংস্থাকে দান করবেন। সানিয়া তেলেঙ্গানার মুখ্যমন্ত্রী ত্রাণ তহবিলে এই অর্থ দান করার কথা ঘোষণা করেন। যা করোনা মোকাবিলায় ব্যবহৃত হবে। সানিয়া বলেন, ‘আমি এই পুরষ্কার থেকে যে অর্থ পেলাম তেলঙ্গানার মুখ্যমন্ত্রী ত্রাণ তহবিলে তা দান করতে চাই৷ কারণ বিশ্বে করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই করতে গিয়ে আমরা খুব কঠিন সময়ের মধ্য দিয়ে যাচ্ছি৷’  সানিয়া মির্জার কৃতিত্বের জন্য ট্যুইটারে টেনিস তারকাকে অভিনন্দন জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় ক্রীড়া মন্ত্রী কিরেণ রিজিজু।  সানিয়া মির্জার কৃতিত্ব ও মানবিক সিদ্ধান্তের পর সকলের মত, আক্ষরিক অর্থেই হৃদয় জিতলেন সানিয়া মির্জা। শুধু আন্তর্জাতিক টেনিসমহলেরই নয়, বরং সমগ্র ভারতবাসীর।

 

 

আরও পড়ুনঃআইসিসির টেস্ট ব়্যাঙ্কিং নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ গম্ভীরের,ভারতই এক নম্বর টেস্ট দল বলে মত গৌতির