নভেম্বর মাসের ২৯ তারিখ সংসদে পেশ করা হয়েছে দেশের নতুন অস্ত্র আইন। এতদিন দেশে ১৯৫৯ সালের অস্ত্র আইন লাগু ছিল। সেই আইনে বেশ কিছু বদল করতে চাইছে কেন্দ্রীয় সরকার। নতুন আইন অনুযায়ী একজন ব্যক্তির কাছে থাকা লাইসেন্স যুক্ত বন্ধুকের সংখ্যা কমাতে চাইছে কেন্দ্র। এই আইন ভাঙলে যাতে বড় অংকের জরিমানা দিতে হয়ে সে কথাও বলা হয়েছে নতুন আইনে। এতদিন একজন ব্যাক্তি লাইসেন্স নিয়ে তিনটি আগ্নেআস্ত্র নিজের কাছে রাখতে পারতেন। কিন্তু এবার সেই সংখ্যা কমিয়ে একটি করার প্রস্তাব দিয়েছে কেন্দ্র। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী আমিত শাহের পেশ করা বিলের প্রস্তাব দেখে মাথায় হাত পরেছে দেশের শ্যুটারদের। 

আরও পড়ুন - অ্যাসেজ-ইতিহাসে স্বর্ণাক্ষরে লেখা তাঁর নাম, প্রয়াত ক্রিকেটের 'প্রিয় বন্ধু’

একজন পেশাদার শ্যুটার নিজেরে ইভেন্ট্র জন্য একাধিক পিস্তল বা রাইফেল নিজেদের কাছে রাখতে পারেতন।  কিন্তু এবার সেটা হবে। তবে একজন শ্যুটার নিজের পারফরম্যান্স ধরে রাখবেন কী ভাবে? এই প্রশ্নই উঠতে শুরু করেছে। ভারতীয় রাইফেল অ্যাসোসিয়েশন এই বিষয়ে কেন্দ্রীয় ক্রীড়ামন্ত্রী কিরেন রিজিজুর দারস্ত হয়। আবেদনের যৌক্তিকতা বিচার করে এবার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের কাছে চিঠি পাঠিয়েছেন দেশের ক্রীড়া মন্ত্রী। দেশের নতুন অস্ত্রআইনে পেশাদার শ্যুটারদের জন্য কিছু ছাড়া চেয়েছেন ক্রীড়ামন্ত্রী কিরেন রিজিজু।

আরও পড়ুন - নতুন ভাবে আত্মপ্রকাশ করতে তৈরি মোতেরা, হার মানবে মেলবোর্নও

কিরেন রিজিজু জানিয়েছেন,‘ আমার মন্ত্রক থেকে দেশের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের কাছে চিঠি দেওয়া হয়েছে। সেখানে এই অস্ত্র আইনে শ্যুটারদের জন্য যেমন কিছু ছাড় চাওয়া হয়েছে, তেমনই আরও কয়েকটি বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য জানতে চেয়েছি আমরা। পেশাদার শ্যুটাররা যাতে একাধিক বন্ধুক নিজেদের কাছে রাখতে পারেন সেটার অনুমতি চাওয়া হয়েছে। কারণ বিভিন্ন প্রতিযোগিতার জন্য অনেক সময় আলাদা আলাদা বন্ধুকে অনুশীলন করতে হয় শ্যুটারদের। ইতিমধ্যেই কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক জানিয়েছে পেশাদার শ্যুটারদের জন্য কিছু নিয়ম শিথিল করার কথা তারা ভেবেছে। তাই আমি খুশি আমাদের দাবি বিচার করে দেখা হচ্ছে।’ কিরেন রিজিজুর আবেদনের পাশাপাশি ভারতীয় রাইফেল অ্যাসোসিয়েশনেও চিঠি দিয়েছে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকে। 

আরও পড়ুন - সম্মানের লড়াইতে স্লোকজারের কাছে হার মোরিনহোর, বড় জয় লিভারপুলের