অলিম্পিকের স্বপ্নে বড় ধাক্কা খেলেন ভারতীয় বক্সার নীরজ ফোগাট। ভারতের হয়ে ৫৭ কেজি ওজন বিভাগের অন্তর্জাতিক বস্কার নীরজ ফোগাট। অন্তবর্তী ভাবে নির্বাসনে পাঠানো হয়েছে তাঁকে। ২৪ সেপ্টেম্বর নীরজের স্যাম্পেল সংগ্রহ করা হয়। তারপর সেটা পরীক্ষা হয়েছে কাতারের ল্যাবে। যে রিপোর্ট এসেছে তাতে জানা গিয়েছে, পারফম্যান্স বৃদ্ধি করা স্টেরয়েড লিগান্ড্রোন ও আরও একাধিক স্টেরয়েডের প্রমাণ পাওয়া গেছে। নাডার কাছে গতমাসেই এই রিপোর্ট এসে পৌঁছায়। নাডা ২০১৫ সালের অ্যান্টি ডোপিং আইন না মানার অপরাধে নভেম্বরের ১৩ তারিখ নির্বাসনে পাঠিয়েছে নীরজকে। এই রিপোর্ট মেনে নিয়েছেন নীরজ ফোগাট। একই সঙ্গে স্যাম্পেল বি টেস্ট করার আবেদনও জানাচ্ছেন না। 

আরও পড়ুন - টি-২০ ক্রিকেটে নতুন ইতিহাস লিখলেন নেপালের গৃহবধূ

নাডা এই রিপোর্ট পাঠিয়ে দিয়েছে তাদের অ্যান্টি ডোপিং ডিসিপ্লিনারি প্যানেলের কাছে। সেখানেই হবে গোটা ঘটানর পূর্ণাঙ্গ শুনানি। এই বিষয়ে বক্সিং ফেডারেশেনর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তাঁরা জানিয়েছেন, গত সপ্তাহেই এই বিষয়ে জানতে পেরেছেন তারা। তবে এখনও বক্সিং ফেডারেশেন নীরজের বিরুদ্ধে কোনও ব্যবস্থা নেয়নি। জাতীয় শিবির থেকে ছুটি নিয়েছেন নীরজ এবং এখন সে খোতায় আছে তা নাকি জানেন না বক্সিং ফেডারেশনের কর্তারা। 

আরও পড়ুন - রবিবার দলকে করলেন চ্যাম্পিয়ন, সোমবার বিয়ের পিঁড়িতে ভারতীয় ক্রিকেটার

২৪ বছরের হরিয়ানার এই বক্সারকে ২০২০ টোকিও অলিম্পিকে প্রতিনিধিত্ব করার অন্যতম দাবিদার বলেই মনে করা হচ্ছিল। চলতি বছরেই বুলগেরিয়ায় ঐতিহ্যশালী টুর্নামেন্ট স্ট্রানজা মেমোরিয়ালে ব্রোঞ্জ পদক পেয়েছেন তিনি। এরপর রাশিয়ায় একটি টুর্নামেন্টে প্রতিনিধিত্ব করে পেয়েছেন সোনার পদক। তবে অক্টোবর মাসে হওয়া বক্সিং বিশ্বকাপে প্রাথমিক পর্যায়েই হারের মুখ দেখতে হয় তাঁকে। এছাড়াও চলতি বছরে গুয়াহাটিতে অনুষ্ঠিত হওয়া ইন্ডিয়ান ওপেনেও সোনার পদক পেয়েছিলেন নীরজ ফোগাট। কেন্দ্রীয় ক্রীড়া মন্ত্রকের টার্গেট অলিম্পিক পোডিয়াম প্রকল্পের অংশও ছিলেন নীরজ ফোগাট। 

আরও পড়ুন - ৪০০ রান করার সুযোগ দেওয়া হল না ওয়ার্নাকে, হতাশ ব্রায়ান লারা