পুলওয়ামার ঘটনার পর ভারতে আয়োজিত আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতায় পাকিস্তানি ক্রীড়াবিদদের অংশগ্রহণে আপত্তি জানিযে মুখ পুড়েছিল ভারতের। বেশ কয়েকটি বড় আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতা আয়োজনের অধিকার হাতছাড়া হয়েছিল। ভারতের সমালোচনা হয়েছিল আন্তর্জাতিক মহলে। এবার সেই লজ্জার অধ্যায় কাটাতে  কেন্দ্রীয়  ক্রীড়ামন্ত্রক এটি গুরকুত্বপূর্ণ ঘোষণা করল। জানিয়ে দেও.য়া হল, নয়া নীতি অনুযায়ী রাজনৈতিক বা কূটনৈতিক উত্তেজনার কারণে এরপর আর ভারতে কোনও দেশের ক্রীড়াবিদদের অংশ নিতে বাধা দেওয়া হবে না। সংশ্লিষ্ট প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণের যোগ্যতামান থাকলেই সেই ক্রীড়াবিদ ভারতে আয়োজিত আন্তর্দতিক প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে পারহবে। পাকিস্তানি ক্রীড়াবিদদের ক্ষেত্রেও এই নীতিই বলবত হবে।

আরও পড়ুন - বিরক্ত আখতার, হারালেন মুখের লাগামও - ধুয়ে দিলেন ক্যাপ্টেনকে

ভারতীয় অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশনকে একটি চিঠি দিয়ে কেন্দ্রীয় ক্রীড়া মন্ত্রক থেকে এই নয়া ভারত সরকারের এই নতুন নীতি সম্পর্কে জানানো হয়েছে। সাফ জানানো হয়েছে এই বিষয়ে কোনও পক্ষপাত, কোনও রাজনৈতিক ও কূটনৈতিক অবস্থান দেখা হবে না। 'বসুধৈব কুটুম্বকম' অর্থাত সারা বিশ্বই পরমাত্মীয় এটা অলিম্পিক ক্রীড়ার মূল সুর। আর এটা ভারত সরকারও সেই ধারাতেই বিশ্বাসী।

আরও পড়ুন - নয়ের দশক থেকে করে আসছি! দ্ব্যর্থবোধক ছবিতে পাকিস্তানকে বিরাট খোঁচা

পুলওয়ামা-বালাকোট অধ্যায়ের পর ভারতে আয়োজিত শুটিং বিশ্বকাপে অংশ নিতে দেওয়া হয়নি দুই পাক শ্যুটারকে। যা জন্য দুটি ইভেন্টে ভারত অলিম্পিক কোটা হারায়। শুধু তাই নয়, এই ঘটনার জেরে ২০২১-এ বিশ্ব বক্সিং চ্যাম্পিয়নশিপ আয়োজনের অধিকার ভারতের হাত থেকে কেড়ে নেওয়ার হুমকি দেয় বক্সিং-এর আন্তর্জাতিক নিয়ন্ত্রক সংস্থা। গত মার্চে ভারত জুনিয়র কুস্তি চ্যম্পিয়নশিপ আয়োজনের অধিকারও হারায়।

আন্তর্জাতিক ক্রীড়া ক্ষেত্রে ক্রমশ একঘরে হতে হতে, অবশেষে দেরীতে হলেও ভারত সরকার এই সিদ্ধান্ত নিতে একরকম বাধ্য হল।

আরও পড়ুন - পাকিস্তানের হারের বদলা নেবেন আমির খান! আগামী মাসেই আসছে সুযোগ