করোনা ভাইরাসের মারণ থাবা ক্রমশ গ্রাস করছে গোটা দেশকে। সাধারণ মানুষ থেকে সেলিব্রিটি, ক্রিকেটার থেকে ফুটবলার বাদ যাচ্ছে না কেউই। দিনের পর দিন লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা। অদৃশ্য ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে দুমাসের বেশি সময় ধরে লকডাউন চললেও ঠেকানো যাচ্ছে না সংক্রমণ। এবার করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ থাবা বসালো হকি ইন্ডিয়ার দফতরেও। দফতরের দুই কর্মীর করোনা রিপোর্ট পজিটিভ ধরা পড়েছে। যেই খবর প্রকাশ্যে আসতেই চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে ভারতীয় হকিতে। যদিও নাম প্রকাশ্যে আনা হয়নি কোভিড ১৯ এ আক্রান্ত দুই কর্মীর।

আরও পড়ুনঃআগুনের হাত থেকে ৪০ জনকে বাঁচিয়ে হিরো হলেন মুম্বইয়ের ক্রিকেটার

দেশ জুড়ে করোনার প্রকোপ বাড়ার ফলে কর্মীদের করোনা টেস্ট করার সিদ্ধান্ত নেয় হকি ইন্ডিয়ার কর্তৃপক্ষ। দফতরের মোট ৩১ জন কর্মীর মধ্যে ২৯ জনের নমুনা পাঠানো হয় ল্যাবে পরীক্ষার জন্য। যাঁদের মধ্যে দু’জনের শরীরে মিলেছে ভাইরাসের হদিশ। ওই দুজনের টেস্ট রিপোর্ট নিয়ে সামান্য ধন্দ থাকায় রবিবার ফের তাঁদের পরীক্ষা হবে বলে জানিয়েছেন আন্তর্জাতিক হকি ফেডারেশন তথা ভারতীয় অলিম্পিক সংস্থার প্রেসিডেন্ট নিরেন্দর বাত্রা। তিনি বলেন, দুই করোনা সন্দেহের আগামিকাল সকাল ১১টায় ফের টেস্ট হবে। উল্লেখ্য ভারতীয় অলিম্পিক সংস্থার প্রেসিডেন্ট নরেন্দর বাত্রার বাবাও করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। 

আরও পড়ুনঃকরোনা ভাইরাসের জের,এবার পিছিয়ে গেল দেশের ফুটবল মরসুম

আরও পড়ুনঃক্রিকেটে সব ম্যাচই 'ফিক্সড',সৎভাবে হয়না কোনও খেলা, বিস্ফোরক দাবি বুকি সঞ্জীব চাওলার

আক্রান্তদের একজন অ্যাকাউন্টস বিভাগের কর্মী এবংঅপরজন জুনিয়র ফিল্ড অফিসার। আর যাঁদের ফের পরীক্ষা হবে, তাঁদের একজন জয়েন্ট ডিরেক্টর ও আরেকজন কাজ করেন ক্লার্ক হিসেবে। দুই কর্মী আক্রান্ত হওয়ার পরই বাকি ২৫ জনকে ১৪ দিনের হোম কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয় বলে জানিয়েছেন নরিন্দর বাত্রা। তিনি বলেন, “যাঁদের রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে, তাঁরাও চিকিৎসকের পরামর্শ মেনে হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন। বাড়িতেই করোনার বিরুদ্ধে লড়াই চালাচ্ছেন। সেই সঙ্গে করোনা সন্দেহকেও বাড়িতেই কোয়ারেন্টাইন করে রাখা হয়েছে। সকলের সুরক্ষার কথা চিন্তা করে ১৪ দিন বন্ধ রাখা হচ্ছে হকি ইন্ডিয়ার অফিস।” দফতর বন্ধ থাকলেও আতঙ্কে ভুগছেন অন্যান্যা কর্মীরা। আক্রান্ত দুই কর্মীকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। চিকিৎসকরা দেখভাল করছেন তাদের।