করোনা সংক্রমণে এবার ২০ লক্ষের মাইল স্টোনও পেরিয়ে গেল বিশ্বরে সবচেয়ে শক্তিশালী দেশ। ওয়ার্ল্ড মিটারের দেওয়া তথ্যানুযায়ী দেশটিতে বর্তমানে আক্রান্তের সংখ্যা ২০ লক্ষ ৮৯ হাজারের বেশি। মারণ ভাইরাস ইতিমধ্যে প্রাণ কেড়েছে ১ লক্ষ ১৬ হাজার মানুষের। তবে এখানেই শেষ নয়। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, আগামী আরও কয়েকমাস আমেরিকায় চলতে থাকবে এই মৃত্যু মিছিল। ফলে দেশটিতে সেপ্টেম্বর নাগাদ মৃতের সংখ্যা ২ লক্ষ ছাড়িয়ে যাবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

একসময় মার্কিন প্রেসিডেন্ট তাঁর স্বভাব সুলভ ভঙ্গীতে দাবি করেছিলেন, দেশটিতে মৃতের সংখ্যা লাখ ছাড়াবে না। সেই দাবিকে ভুল প্রমাণ করে মৃতের সংখ্যা অনেক আগেই লাখের গণ্ডি পেরিয়ে গেছে। এই সময়ে হার্ভাড গ্লোবাল হেলথ ইনস্টিটিউটের বিশেষজ্ঞদের আশঙ্ক, আরও অনেক মৃত্যু দেখা বাকি রয়েছে আমেরিকার। সেপ্টেম্বরের মধ্যে আরও এক লক্ষ মানুষ প্রাণ হারাবে এই মারণ ভাইরাসে। সেই সঙ্গে তাঁদের হুঁশিয়ারি, সেপ্টেম্বরের পরেও অতিমারী কিন্তু থেমে থাকবে না। হার্ভার্ড গ্লোবাল হেল্‌থ ইনস্টিটিউট’-এর প্রধান আশিষ ঝা জানিয়েছেন, ‘‘সংক্রমণের গতি যদি আমেরিকায় আর নাও বাড়ে, সংক্রমণের রেখাচিত্রটিকে যদি আমরা সরল করেও আনি, এই আশঙ্কা খুব অযৌক্তিক নয়, সেপ্টেম্বরের মধ্যে মৃতের সংখ্যা ২ লক্ষ ছুঁয়ে ফেলবে।’’

মৃত্যু মিছিলেও ভ্রুক্ষেপ নেই প্রেসিডেন্ট বলসোনারোর, সৈকতে কবর খুঁড়ে প্রতিবাদে দেশবাসী

মহামারীর বিশ্বে এবার সুখবর শোনাল মডার্না, জুলাইতে হতে চলেছে ভ্যাকসিনের চূড়ান্ত পরীক্ষা

নয়া রেকর্ড গড়ে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা আক্রান্ত প্রায় ১১ হাজার, দেশে সংক্রমণের সংখ্যা এবার ৩ লক্ষ ছুঁই ছুঁই

গত ২৪ ঘণ্টায় মার্কিন মুলুকে ২৭ হাজারেরও বেশি মানুষের শরীরে করোনা সংক্রমণ পাওয়া গিয়েছে। মৃতের সংখ্যা হাজার ছুঁই ছুঁই। এই অবস্থায় ধীরে ধীরে লকডাউন থেকে বেরিয়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরছে আমেরিকা। তাই আগামী মাসগুলিতে পরিস্থিতি কী দাঁড়াবে তা নিয়ে আশঙ্কায় রয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। ইতিমধ্যে নিউ মেক্সিকো, উটা, অ্যারিজ়োনায় সংক্রমণ ৪০ শতাংশ হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। খুব খারাপ পরিস্থিতির জন্য তৈরি থাকার হুঁশিয়ারি দিয়ে রেখেছে অ্যারিজোনার হাসপাতালগুলি। ফ্লরিডা ও আরকানসাসের পরিস্থিতিও দিনে দিনে জটিল হচ্ছে। পরিস্থিতি থেকে নর্থ ক্যারোলিনার গভর্নর স্কল ও ব্যাবসা-বাণিজ্য পুনরায় চালু করার সরকারি সিদ্ধান্তটিকে পনর্বিবেচনা করার অনুরোধ জানিয়েছেন।  এর মধ্যে বর্ণবৈষম্যের প্রতিবাদে দেশ জুড়ে বিক্ষোভের আগুল জ্বলছে। এই বিক্ষোভ-আন্দোলনের জেরে সংক্রমণ আরও বাড়বে বলেই আশঙ্কা থেকে যাচ্ছে।