ভারতীয় খাবার মুগ্ধ ছিলেন তিনি। সাধারণ ভাত ডাল শুরু করে মাংসের একাধিক পদ  ছিল তাঁর পছন্দের। আর সেই খাবরই বাড়িতে তৈরি করার চেষ্টা করেছেন মার্কিন মুলুকের এক মার্কিনি শেফ। তৈরিও করেছিলেন একাধিক খাবার। তবে সেই মার্কিন শেফের মূল উদ্দেশ্যই ছিল ভারতীয় থালি হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ ভারতীয় খাবার পরিবেশন করা। 


ভারতের ঐতিহ্যবাহী খাবারগুলি রান্না করার দিকে ছিল তাঁর বিশেষ ঝোঁক। তাই কালবিলম্ব না করে বেশ কয়েকটি খাবার তৈরিও করেছিলেন তিনি। যার মধ্যে ছিল গ্রিল্ড বাটার চিকেন, বাটারমিল্ক ক্রাম্ব, ডাল মাখানি, গোটমিল্ক রায়তা, ভেড়ার মাংস, লাইম পিকেল, চাপাটি, নান। আর শেষ পাতে পরিবেশন করার জন্য তৈরি করেছিলে গোলাপ জাম। আর সেই খবারের ছবি একটি খাবারে জার্নালে প্রকাশও করেন তিনি। 

আর সেই সঙ্গে তিনি লিখেছিলেন  তিনি একজন পশ্চিমী যিনি ভারতীয় ঐতিহ্য আর খাবার সম্পর্কে জানতে কঠোর পরিশ্রম করতে আগ্রহী। এটাই ছিল তাঁর প্রথম প্রচেষ্টা। একই সঙ্গে তিনি জয় হিন্দও বলেছেন। 

ড্রাগনের নজরে কালাম দ্বীপ আর তেজপুর এয়ারবেস, মায়ানমার সীমান্তে বসানো হয়েছে রেডার ...

আইএস জঙ্গি যোগে এনআইএ-র জালে বেঙ্গালুরুর চিকিৎসক, সন্ত্রাসবাদীদের জন্য তৈরি করছিল বিশেষ অ্যাপ .

মার্কিন সেই শেফ নিজেকে ফ্রেড বলে পরিচয় দিয়েছেন। পাশাপাশি তিনি জানিয়েছে তিনি একজন পেশাদার শেফ। লেখক আর রেস্তোঁরার মালিক। তিনি স্পষ্ট করে বলেছেন তিনি কোনও ভারতীয় শেষ নন। তবে এক ভারতীয় শেফের অধীনে প্রায় দুবছর প্রশিক্ষণ নিয়েছিলেন। তখন থেকেই তাঁর ভারতীয় খাবারের প্রতি আগ্রহ জন্মায়। কিন্তু পাশাপাশি তিনা আরও জানিয়েছেন ভারতীয় রন্ধন প্রনালী শিখতে তিনি আগ্রহী। কিন্তু ভারতীয় খাবার তৈরি করা কিছুটা হলেও সময় সাপেক্ষ বলেও তিনি জানিয়েছেন। একই সঙ্গে ফ্রেড জানিয়েছেন তিনি হিন্দি বলাও শিখছেন। ভারতের ঐতিহ্যবাহী খাবারের টানে ভারতেও ভ্রমণেরও পরিকল্পনা গ্রহণ করেছেন তিনি। আগামী বছরই ভারতে আসতে চান। আর ইতিমধ্যেই বেশ কয়েকজন ভারতীয় শেফের সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন তিনি। 

এবার থেকে মাস্ক পরাবে মেশিন, ভাইরাল হওয়া ভিডিওতে চোখ রাখুন আপনিও ..