তৃণমূল কংগ্রেস নেতা রাজ্যের শ্রম দফতরের প্রতিমন্ত্রী জাকির হোসেনের ওপর বোমা হামালার পর এখনও ২৪ ঘণ্টাও কাটেনি। তারই মধ্যে আবারও রাজনৈতিক উত্তেজনা মুর্শিদাবাদে। বৃহস্পতিবার জেলার হরিহরপাড়ার মালোপাড়া এলাকায় দুষ্কৃতীরা নিশানা বানাল তৃণমূল কংগ্রেস নেতা তাহাউদ্দিন মণ্ডল ওরফে লালনকে। প্রত্যক্ষদর্শীদের কথায় তাঁকে লক্ষ্য করে এলোপাথাড়ি গুলি চালান হয়। পয়েন্ট ব্ল্যাঙ্ক রেঞ্জ থেকেও গুলি করা হয়েছে বলেও অভিযোগ তোলা হয়েছে। এই ঘটনায় গুরুতর আহত অবস্থায় তৃণমূল কংগ্রেস নেতা তাহাউদ্দিনকে মুর্শিদাবাদ মেডিক্যাল কলেজে নিয়ে যাওয়া হয়েছ। 


পরিস্থিতি সংকটজনক হওয়ায় প্রাথমিক চিকিৎসার পরই তাহাউদ্দিনকে নিয়ে রেফার করা হয় কলকাতায়। তৃণমূল কংগ্রেস নেতার ওপর হামলার ঘটনায় কাঠগড়ায় দাঁড় করানো হয়েছে স্থানীয় কংগ্রেস আশ্রিত দুষ্কৃতীদের। যদিও স্থানীয় কংগ্রেস নেতা আলমগির পলাশ অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। তৃণমূল কংগ্রেসের দলীয় কোন্দলই হামলার জন্য দায়ি বলে অভিযোগ করেন তিনি। নিজেদের ঘাড় থেকে দায় সরিয়ে ফেলতেই কংগ্রেসের দিকে অভিযোগ তোলা হয়েছে বলে দাবি করেছেন তিনি। যদিও তৃণমূল কংগ্রেসের স্থানীয় কর্মী সমর্থকরা জানিয়েছেন এই ঘটনায় একমাত্র দায়ি কংগ্রেস। 

তাহাউদ্দিনের বাড়ি হরিহরপাড়ার মালোপাড়ায়। এদিন বাড়ি ফেরার সময় তাঁর ওপর হামলা চালায় হয় বলে অভিযোগ। বাইকে করে আসে দুষ্কৃতীরা। তারা একের পর গুলি চালাতে থাকে। পয়েন্ট ব্ল্যাঙ্ক রেঞ্জ থেকে গুলি চালানোর পাসাপাশে বেশ কয়েক জন বাইক আরোহী এলোপাথাড়ি গুলি চালায় বলে অভিযোগ। গুলিবিদ্ধ হয়ে তাহাউদ্দিন রক্তাক্ত অবস্থায় মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। তাঁর মাথায় গুলি লেগেছে বলে মনে করা হচ্ছে। গুরুতর জখম অবস্থায় তাঁকে ভর্তি করা হয়েছে হাসপাতালে। ঘটনার তদন্তে নেমেছে স্থানীয় প্রশাসন। তদন্তকারীদের দাবি বেশ কয়েকরাউন্ড গুলি চালান হয়েছে। বাইক আরোহী দুষ্কৃতীদের সনাক্ত করার চেষ্টা করা হচ্ছে বলেও পুলিশ সুত্রের খবর। প্রাথমিক তদন্তের পুলিশের অনুমান তাহাউদ্দিনের ওপর হামলা চালানোর জন্য সুপারি দেওয়া হয়েছিল। 

পেট্রোলের মূল্যবৃদ্ধি ইস্যুতে সরব প্রধানমন্ত্রী, নাম না করে কাঠগড়ায় দাঁড় করালেন আগের সরকারকে ...

মমতার দাবি জাকির হোসেনের ওপর হামলার দায় রেলের, জঙ্গি হামলার জল্পনা ওড়াল রেলের সূত্র ...

গতকাল রাতে মুর্শিদাবাদের জঙ্গিপুরে নিমতি স্টেশনে বোমা ছুঁড়ে হামলা চালান হয় রাজ্যের শ্রমদফতের প্রতিনমন্ত্রী জারিক হোসেনের ওপর। রাতের অন্ধকারেই হামলা চালায় দুষ্কৃতী। এই ঘটনায় তিনি গুরুতর জখম হয়েছিলেন। তাঁর বেশ কয়েকজন সঙ্গীও জখম হয়েছিল। আক্রান্ত অবস্থায় চিকিৎসার জন্য জাকির হোসেনকে মুর্শিদাবাদ থেকে নিয়ে আসা হয়েছে কলকাতার এসএসকেএম হাসপাতালে। সেখানেই চিকিৎসা চলছে তাঁর। হামলার পর থেকেই তৃণমূল কংগ্রেস কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়েছেন বিজেপি, কংগ্রেস ও বামেদের মত যুযুধান রাজনৈতিক দলগুলিকে।