শুক্রবার রাজ্য সফরের কথা ছিল কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের। নদিয়ায় ইস্কন মন্দির পরিদর্শনের পর ঠাকুরনগরে মতুয়াদের সঙ্গে দেখা করার কথা ছিল তাঁর। কিন্তু, শুক্রবার রাতে দিল্লিতে বিস্ফোরণের জেরে সভা বাতিল হয় তাঁর। পূর্ব ঘোষিত ঘোষণা অনুযায়ী ঠাকুরনগরে গিয়ে মতুয়াদের সঙ্গে দেখা করতে পারেননি অমিত শাহ। এই অবস্থায় ক্ষোভের সঞ্চার হয় মতুয়াদের মধ্যে। শনিবার সকাল থেকে ঠাকুরনগরে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন মতুয়া সম্প্রদায়ের মানুষ।

আরও পড়ুন-দুটি পৃথক জায়গায় বিধ্বংসী অগ্নিকাণ্ড, আগুনে ভস্মীভূত দুশোরও বেশি বাড়ি

ভোটের আগে নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন নিয়ে মতুয়াদের কী বার্তা দেন অমিত শাহ? তা নিয়ে আশা আকাঙ্খা নিয়ে রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ঠাকুরনগরে জড়ো হয়েছিলেন মতুয়া সম্প্রদায়ের মানুষ। শুক্রবার থেকেই জমায়েত শুরু হয়ে গিয়েছিল ঠাকুরনগরের ঠাকুরবাড়িতে। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বক্তৃতার জন্য তৈরি হয়েছিল হ্যালিপেড, সভা মঞ্চ। কিন্তু, অমিত শাহ না আসায় মন ভেঙে যায় তাঁদের। তার জেরে এদিন সকাল থেকে ঠাকুরবাড়ির সামনে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন তাঁরা। ভোটের আগে এই অভাবনীয় পরিস্থিতি সামাল দিতে কৈলাস বিজয়বর্গীয় ও মুকুল রায়। তাঁরা সেখানে পৌঁছতেই তাঁদের ঘিরে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন মতুয়া সম্প্রদায়ের মানুষ। বনগাঁর বিজেপি সাংসদ শান্তনু ঠাকুর অমিত শাহর সঙ্গে কথা বলেন। এরপরই, মুকুল রায় জানান, পূর্ব ঘোষিত পরিকল্পনায় কোনও পরিবর্তন হচ্ছে না। ওই সভামঞ্চেই সভা করবেন অমিত শাহ। ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে মতুয়াদের সঙ্গে দেখা করতে অমিত শাহ বাংলায় আসার সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানান মুকুল  রায়।

আরও পড়ুন-ডুমুরজোলার সভায় না থেকেও থাকবেন অমিত শাহ, উড়ে আসছেন শুধুই স্মৃতি ইরানি

সিএএ নিয়ে মতুয়াদের বার্তা দেওয়ার কথা ছিল কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর।  আইন পাশ হয়ে গেলেও এখনও কার্যকর হয়নি। এই অবস্থায় মতুয়াদের কী বলেন? এই আইন থেকে কতটা সুবিধা পাবেন মতুয়ারা? সেই সব উত্তরের আশায় ছিলেন মতুয়ারা। কিন্তু শুক্রবার সন্ধ্যে নাগাদ দিল্লিতে ইজরায়েলি দূতাবাসের সামনে বিস্ফোরণ ঘটে। তার জেরে দেশ জুড়ে নিরাপত্তা বৃদ্ধি করা হয়। স্থগিত করা হয় কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বাংলা সফর। এই অবস্থায় অমিত শাহের সঙ্গে দেখা করতে না পেরে ক্ষোভ প্রকাশ করলেন মতুয়ারা।