চিটফান্ড কেলেঙ্কারিতে সর্বস্বান্ত হয়েছেন রাজ্যের বহু মানুষ। সারদা, রোজভ্যালি সহ বিভিন্ন চিটফান্ড সংস্থায় টাকা ঢেলে দুর্ভোগের শিকার হয়েছেন রাজ্যবাসী। ভোটের আগে আবারও উঠল চিটফান্ড কেলেঙ্কারির প্রতিবাদ। মুখ্যমন্ত্রী সহ রাজ্যপালের কাছে স্মারললিপি দিয়েও আশ্বাস ছাড়া কিছুই মেলেনি। একইভাবে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীও চিটফান্ডের টাকা ফেরতের শুধুমাত্রা আশ্বাস দিয়েছেন বলে দাবি আমানতকারীদের। কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হয়নি। এর প্রতিবাদে দক্ষিণ দিনাজপুরে সরব হলে  চিটফান্ড সাফার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন। 

আরও পড়ুন-অসম হয়ে বাংলায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, আজ একাধিক কর্মসূচিতে যোগ শাহের

বুধবার বিকেলে বালুরঘাটে বিক্ষোভ দেখান  চিটফান্ড সাফার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের সদস্যরা।  বালুরঘাট আর্য্যসমিতি এলাকায় গান্ধী মূর্তির পাদদেশে প্রথমে অবস্থান-বিক্ষোভ করেন তাঁরা। অবস্থান বিক্ষোভের পর বালুরঘাট হিলি মোড়ে রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখায় চিটফান্ড এজেন্টরা। এরপর প্রধানমন্ত্রী ও মুখ্যমন্ত্রীর কুশপুত্তলিকা দাহ করে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কুশপুতুল পোড়ানো হয়। অবরোধের ফলে প্রায় আধ ঘণ্টার জন্য বালুরঘাট থেকে হিলি এবং বালুরঘাট থেকে মালদা ও রায়গঞ্জ রুটের যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। আধ ঘণ্টা পর অবরোধ তুলে নিলে যান চলাচল স্বাভাবিক হয়। 

আরও পড়ুন-ভর সন্ধ্য়ায় আসানসোলে চলল গুলি, গুলিবিদ্ধ ১, ভোটের আগে দুষ্কৃতী-আতঙ্ক

চিটফান্ড আমানতকারীদের টাকা ফেরতের দাবি জানিয়েছেন বিক্ষোভকারীরা।এই বিষয়ে আন্দোলনকারী দেবব্রত দে জানান, "২০১৩ সাল থেকে বিভিন্ন চিটফান্ড উঠে যাওয়ার ফলে কোটি কোটি গরিব আমানতকারী প্রতারিত হয়েছেন। তাদের টাকা ফেরতের দাবিতে রাজ্য ও কেন্দ্র সরকারের কাছে আমরা বহুবার চিঠি পাঠিয়েও কোনও সদুত্তর পাইনি। এমনকি চিটফান্ডের এজেন্টদের সঙ্গে সমস্যা সমসধানের জন্য আলোচনায় বসার শুধু প্রতিশ্রুতি মিলেছে। কিন্তু গচ্ছিত টাকা ফেরতের জন্য কোনও পদক্ষেপ করা হচ্ছে না। তাই আমরা মুখ্যমন্ত্রী ও রাজ্যপালের কাছে ডেপুটেশন দিয়েছি''।