নন্দীগ্রামের ভোট শেষ হওয়ার পরেই রাজ্যরাজনীতি উত্তপ্ত হয়ে রইল নন্দীগ্রাম ইস্যুতেই। শুক্রবারও কোচবিহারের নির্বাচনী জনসভা থেকে তৃণমূল সুপ্রিমো তথা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরাসরি আক্রমণ করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে। তিনি বলেন, 'আগে নিজের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীকে নিয়ন্ত্রণ করুন। তারপরে আমাদের নিয়ন্ত্রণ করতে আসবেন।'

গতকাল রাজ্যের প্রচার সভায় নরেন্দ্র মোদী বলেছিলেন নন্দীগ্রাম ছাড়াও অন্য একটি আসন থেকে ভোটে লড়াই করতে পারেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এদিনও একই কথা শোনাগেছে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী অমিত শাহর মুখ থেকে। সংবাদ সংস্থা এএনআই জানিয়েছে, নন্দীগ্রামে পরাজয় আসন্ন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। সেই প্রসঙ্গ টেনে এনে এদিন মমতা বলেন, 'আমি আপনার দলের কোনও সদস্য নই। যে আপনি অন্য কোনও আসন থেকে লড়াই করার পরামর্শ দেবেন আমাকে। ' তারপরেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন আমি আপনার দলের কোনও সদস্য নই যে আপনি আমাকে নিয়ন্ত্রণ করবেন। তবে সবার আগে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে নিয়ন্ত্রণ করা জরুরি বলেও জানিয়েছেন তিনি।  

'নন্দীগ্রামে আমিই জিতব', শাহ-র তোপ গিলে উত্তরবঙ্গে বিস্ফোরক মমতা ...

মোদী সরকারের কিছু প্রকল্প, যার লক্ষ্য মহিলাদের স্বনির্ভরতা .

এদিন মমতা বলেন নন্দীগ্রাম আসন থেকে তিনি জয়ী হবেন। এই কেন্দ্রে তাঁর মূল প্রতিদ্বন্দ্বী তারই মন্ত্রিসভার প্রাক্তন সদস্য বর্তমানে বিজেপি নেতা শুভেন্দু অধিকারী। মমতা বলেন তিনি নন্দীগ্রামে জিতবেন। তিনি আরও বলেন তৃণমূলকে ক্ষমতায় ফিরতে গেলে তার সঙ্গে আরও ২০০ প্রার্থীয় জয়  জরুরি। তবেই তিনি সরকার গঠন করতে পারবেন। ভোটের দিন কেন্দ্রীয় বাহিনীকে প্রতিহত করার জন্য মহিলাদের এগিয়ে আসার কথাও বলেন তিনি। কারণ তৃণমূলের অভিযোগ কেন্দ্রীয় বাহিনী বিজেপির হয়ে ভোটারদের প্রভাবিত করার চেষ্টা করছে।

অন্যদিকে ভোট প্রচারে রাজ্যে এসে অমিত শাহ বলেন নন্দীগ্রামে হেরে যাওয়াতেই ভোটে নৈরাজ্য়ের অভিযোগ তুলেছেন। তিনি বলেন এই রাজ্যে তোলাবাজি আর তানাশাহীর সরকার চালাচ্ছে তৃণমূল।