কৌশিক সেন, রায়গঞ্জ- বুধবার রায়গঞ্জে নির্বাচনী জনসভা করবেন মুখ্যমন্ত্রী। তাঁর এই নির্বাচনী জনসভা ঘিরে প্রস্তুতি চলছে জোরকদমে। রায়গঞ্জ স্টেডিয়ামে মঞ্চ তৈরি সহ পোস্টার লাগানোর কাজ চলছে জোরকদমে। রায়গঞ্জ হাসপাতালের দেড়শ মিটার মধ্যে চারিদিকে মাইক লাগানো হয়েছে। এই হাসপাতাল চত্বরে মাইক লাগানো ঘিরে তুমুল বিতর্ক। এই অবস্থায় তৃণমূলকে বিঁধলেন স্থানীয় বিজেপি নেতৃত্বরা।

আরও পড়ুন-'সস্তায় ক্ষমতা পেয়েছেন তো, তাই মস্তি করছেন', বীরভূম থেকে অভিষেককে তোপ নাড্ডার

মুখ্যমন্ত্রীর সভাস্থল থেকে ঢিলছোঁড়া দূরত্বে রায়গঞ্জ মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতাল। আর সেই হাসপাতালে চারপাশে নানান জায়গায় মাইক লাগানো হয়েছে। স্বাস্থ্যবিধিকে তোয়াক্কা না করে তৃণমূল এই ধরনের কাজকর্মের জন্য তীব্র সমালোচনা করা হয়েছে বিজেপির তরফে।  প্রায় লক্ষাধিক মানুষকে সভাস্থলে নিয়ে আসার টার্গেট নিয়েছে তৃণমূল নেতৃত্ব। প্রথমদিকে কালিয়াগঞ্জের চান্দোল মাঠে তৃণমূল নেত্রীর সভা করার কথা থাকলেও রাতারাতি সভাস্থল সরিয়ে নিয়ে আসা হয় রায়গঞ্জে।  বিষয়টি নিয়ে ইতিমধ্যেই সরব হয়েছে বিজেপি ও কংগ্রেস নেতৃত্ব। যদিও তৃণমূল নেতৃত্ব জানিয়েছেন, নিয়ম মেনেই সভা করা হচ্ছে।

আরও পড়ুন-'যতদিন বাঁচবো, রয়্যাল বেঙ্গল টাইগারের মতো বাঁচব', বহরমপুরে বিজেপিকে আক্রমণ করে মন্তব্য মমতার

জেলা কংগ্রেসের ওয়ার্কিং প্রেসিডেন্ট পবিত্র চন্দ বলেন,"মেডিক্যাল কলেজের পাশে কোনও ভাবেই মাইক লাগিয়ে সভা করা উচিত নয়। কিন্তু সব জেনেও প্রশাসন কীভাবে এই মাঠে সভার অনুমতি দিল? তৃণমূল দল কোনও নিয়ম,কানুন মানে না। বিনাশকালে বুদ্ধিনাশ হয়েছে তাদের। " অন্যদিকে, তৃণমূল কংগ্রেসের জেলা মুখপাত্র সন্দীপ বিশ্বাস বলেন," এসবই বিরোধীদের অপপ্রচার। স্টেডিয়ামের ঘেরা জায়গায় সভা হচ্ছে সব নিয়ম মেনে। রোগীদের কোনো অসুবিধা হবে না''।