মমতার ঘনিষ্ঠ মহলে লুকিয়ে বিজেপির চর। কারণ তৃণমূল সুপ্রিমো  অন্য কোনও আসনে লড়তে পারেন, এখবর মমতার ঘনিষ্ঠ মহল থেকেই পেয়েছেন বলে দাবি করেছেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা। 

 

 মমতার ঘনিষ্ঠ মহলে লুকিয়ে BJP-র চর 

 

 

'দেবশ্রী রায়কে নিয়ে ক্ষোভ ছিল-তাই প্রার্থী করিনি', বিস্ফোরক মমতা  

 

সেদিন বৃহস্পতিবার, দুপুরে তখন উত্তাল নন্দীগ্রামের বয়ালের বুথ।  রাজ্যজুড়ে চলছে দ্বিতীয় দফার ভোট। বয়ালের সেই বিতর্কিত বুথে যেতেই বহিরাগত ইস্যু অভিযোগ তোলেন মমতা বন্দ্য়োপাধ্যায়।  রাজ্যপালকেও ফোন করেন তিনি। এদিকে সেই বিতর্কিত ১ এপ্রিলেই জয়নগরে-উলুবেড়িয়ায় একের পর এক জনসভায় নির্বাচনী প্রচারে বাজিমাত করে চলেছেন মোদী। প্রধানমন্ত্রী মোদী দাবি করেন সেদিন, নন্দীগ্রামে হারছেন মমতা। গত ১০ বছর ঠিক করে কাজ করলে আজ এই দিন দেখতে হতো না দিদিকে। অমিত শাহও সেই বিতর্কিত প্রসঙ্গকে আরও উসকে দিয়ে বলেন, প্রথম-দ্বিতীয় দফা মিলিয়ে ৬০ আসনের ৫০ টি জিতেছে বিজেপি। 

 

'নেত্রী নন্দীগ্রাম থেকে হারছেন সেটা নিশ্চিত' 


 

 

আরও পড়ুন, কেন্দ্রীয় বাহিনীর কর্মকাণ্ডে ক্ষোভ, তৃণমূলের অভিযোগ পেয়ে ডানা ছাঁটল কমিশন  

 

এমন এক সময় আরও একধাপ এগিয়ে বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা সামনে আনেন বিস্ফোরক তথ্য, তৃণমূল সুপ্রিমো যে  অন্য কোনও আসনে লড়তে পারেন, এখবর মমতার ঘনিষ্ঠ মহল থেকেই তিনি পেয়েছেন। মমতা বন্দ্য়োপাধ্য়ায় নিজের রাজনৈতিক ছক কষেছেন। সেটার বিষয়ে তিনি ভাল জানবেন। তবে আমাদের কাছে খবর এসেছে তিনি অন্য কোনও একটি কেন্দ্রে ভোট লড়াইয়ের বিষয়ে পরিকল্পনা নিয়েছেন। তাঁর ঘনিষ্ঠরাই একথা জানিয়েছেন আমাকে। তিনি যে নন্দীগ্রাম থেকে হারছেন সেটা নিশ্চিত।' তবে মমতার ঘনিষ্ঠ মহলে এমন কে রয়েছেন যিনি বিজেপির হয়ে কাজ করছেন, নাড্ডার এই মন্তব্যের পরই জল্পনা তুঙ্গে।