সমস্যা বাড়ল মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। নির্বাচনী সমাবেশ থেকে বিজেপির বিরুদ্ধে রাজ্যের মুসলিম ভোটারদের ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আবেদন করেছিলেন তিনি। এই প্রেক্ষিতে বুধবার পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীকে র নোটিশ পাঠালো ভারতীয় নির্বাচন কমিশন। কমিশন জানিয়েছে বলেছে, ওই মন্তব্য করে নির্বাচনের আদর্শ আচরণবিধি লঙ্ঘন করেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায়কে নোটিশ হাতে পাওয়ার ৪৮ ঘন্টার মধ্যে ওই মন্তব্যের প্রেক্ষিতে তাঁর অবস্থান স্পষ্ট করতে বলা হয়েছে। তা না করতে পারলে, এই বিষয়ে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানিয়েছে তারা।

হুগলি জেলার তারকেশ্বরের সভায় সংখ্যালঘু ভোট এক করার ডাক দিয়েছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বিজেপিকে আটকাতে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের সকলকে একজোট হয়ে তৃণমূলের পক্ষে ভোট দিতে বলেছিলেন তিনি। তাঁর ওই মন্তব্যকে সেন্সর করার আবেদন জানিয়ে নির্বাচন কমিশনে অভিযোগ করেছিল কেন্দ্রীয় মন্ত্রী মুখতার আব্বাস নকভির নেতৃত্বাধীন বিজেপির এক প্রতিনিধি দল। সেই অভিযোগের ভিত্তিতেই এদিনের নোটিশ এল।  

"

তবে, মমতা শুধু ওই একটি সভাতেই নয়, বিভিন্ন সভা থেকেই মুসলিম ভোট ভাগ হওয়া আটকানোর আবেদন করছেন। একইসঙ্গে আসাদুদ্দিন ওয়াইসির এআইমিম এবং আব্বাস সিদ্দিকীর আইএসএফ-কে আক্রমণ করছেন। 'হায়দরাবাদ থেকে এল গাই, সঙ্গে এল তার ভাই', কিংবা 'সংঘালঘু ভাইবোনদের উদ্দেশ্যে বলছি, আপনাদের মধ্যেও দু-একটা গদ্দার জন্মেছে' - এমন ধরণের মন্তব্য তাঁকে প্রায়ই করতে শোনা যাচ্ছে।

আরও পড়ুন - কখনও ইমাম ভাতা, কখনও ক্লাবকে অনুদান - জনগণের টাকাতেই কি ভোট কিনছেন মমতা

আরও পড়ুন - বঙ্গের কোন কোন কেন্দ্রে সহজে জিতবে বিজেপি, কোথায় লড়াই কঠিন - কী বলছে দলের গোপন বিশ্লেষণ

আরও পড়ুন - মুর্শিদাবাদে বোমাবাজিতে মৃত্যু মহিলাসহ দু'জনের, তৃণমূলকেই দুষলেন কংগ্রেস বিধায়িকা

মঙ্গলবার রাজ্যে প্রচার করতে এসে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বলেছিলেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মুসলিম ভোট ব্যাঙ্ককে তাঁর শক্তি বলে মনে করেন। কিন্তু, তিনি যেভাবে বারবার মুসলিম ভোট বিভাজন আটকাবার ডাক দিচ্ছেন, তাতে স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছে, মুসলিম ভোটও তাঁর হাত থেকে বেরিয়ে গিয়েছে। এই ঘটনাও তাই প্রমাণ করে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পরাজয় নিশ্চিত।