ক্রমশই আলোচনার কেন্দ্রবিন্দু হয়ে দাঁড়াচ্ছে বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়। তাঁদের নিজস্ব হাসপাতাল পিয়ারসনে বড়সড় দুর্নীতির অভিযোগ উঠল। ক্যাগ রিপোর্ট প্রকাশ্যে আসতেই আর্থিক দুর্নীতির অভিযোগ তুলেছেন অনেকেই। তথ্য সামনে আসতেই পাঁচজন ফার্মাসিস্টকে শোকজ করল বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

আরও পড়ুন-ছাত্র সংঘর্ষে রণক্ষেত্র বাজকুল কলেজ, বাইকে আগুন, অগ্নিগর্ভ গোটা এলাকা

বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মী, আধিকারিক, অধ্যাপক সহ তাঁদের পরিবারের জন্য বিশ্বভারতীর নিজস্ব একটি হাসপাতাল রয়েছে। নাম পিয়ারসন মেমোরিয়াল হাসপাতাল। ওই হাসপাতালে তাঁরাই চিকিৎসা করে থাকেন। ইন্ডোরের পাশাপাশি আউটডোরেও চিকিৎসা করানোর সুবিধা রয়েছে। বিশ্বভারতীর একাংশের অভিযোগ ওই হাসপাতালে ওষুধ নিয়ে বেআইনি কারবার চলছে। অভিযোগের তদন্ত শুরু করে ক্যাগ। ক্য়াগের সেই রিপোর্ট থেকেই যাবতীয় কেলঙ্কারি প্রকাশ্যে এসেছে।

আরও পড়ুন-আজ অভিষেক-পিকের বৈঠকে গুরুং-তামাং, বিমল বিরোধী পোস্টারে ঢাকল কার্শিয়াং

বিশ্বভারতীর নিজস্ব হাসপাতালে দুর্নীতির তদন্ত ক্যাগ রিপোর্ট অনুযায়ী, বিগত প্রায় চার বছর ধরে বেশ কয়েকটি ওষুধ নিয়ে দুর্নীতি চলছে। মূলত অ্যাজিথ্রোমাইসিন, সেভিক্সিন ট্যাবলেট নিয়ে আর্থিক কেলেঙ্কারি হয়েছে বলে অভিযোগ। ক্যাগের রিপোর্ট অনুযায়ী জানাগেছে, নিয়ম না ভেঙে দুলক্ষেরও বেশি ট্যাবলেট স্টোর থেকে কাউন্টারে আনা হয়। কিন্তু অনুযায়ী চিকিৎসকের প্রেসক্রিপশন ছাড়া কেউ ওষুধ দিতে পারেন না। ওই হাসপাতালে ওষুধ নিয়ে কুড়ি লক্ষ টাকা দুর্নীতি করা হয়েছে বলে অভিযোগ।